অপহৃতা ১০

15/07/2013 10:55

বিভুকান্তের প্রথম স্ত্রী-বিয়োগ হয় আজ থেকে ছ-বছর আগে| তিনি দ্বিতীয় বিবাহ করেন বিভাবরীকে আজ থেকে চার বছর আগে| বিভাবরী নিয়ে আসেন তাঁর সাথে তাঁর প্রয়াত স্বামীর দুই কন্যা-সন্তান তন্নিষ্ঠা ও তনিকাকে|
প্রথম থেকেই এই দুই অত্যন্ত সুন্দরী তনয়াকে চোখে লেগে যায় বিভুকান্তের| তিনি স্বভাবতই যৌনকাতর| যৌনতা তাঁর শুধু কেন, তাঁর স্বনামধন্য বংশের অন্যতম দুর্বলতার প্রতিক| বিভুকান্ত বড় হয়েছেন নানারকম গুপ্ত যৌন-ইচ্ছা মনে চেপে,.. তাঁর বিবাহ হয়েছে খুবই সাদামাটা রমনীর সাথে এবং কম বয়সেই| যদিও তা তাঁকে তাঁর যৌনজীবন বিশেষ প্রভাবিত করতে দেয়নি, তবুও সবকিছুর মধ্যে কোথাও যেন একটা ফাঁক, কোথায় যেন একটা শুন্যতা| বিভাবরীর সাথে বিবাহ খুবই ঘটা করে হয় বিভুকান্তের| রশিপুরের সর্বত্র আলোড়ন ফেলেই সম্পাদিত হয় জমিদারবাড়ির আরেকটি বিবাহ| কিন্তু তাঁর জীবনে আসল আলোড়ন তোলে দুটি চোখ ঝলসানো রূপের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ তন্নিষ্ঠা ও তনিকা| ওদের হাঁটাচলায়, কথপোকথনে, প্রতিটি চাউনি, প্রতিটি ভঙ্গি তাঁকে যেন বারংবার শিহরিত করে করে তুলতে থাকে| তাঁর জীবনে এই দুটি মেয়ের আনাগোনায় তিনি যেন নিজের মধ্যে নতুন, নাম-না-জানা সব অনুভূতি আবিষ্কার করে উঠতে থাকেন| নানা ছলনায়, ছুতোয় ওদের সঙ্গলাভ ও দৃষ্টিলাভের চেষ্টা করে যেতে থাকেন তিনি.. কিন্তু এই দুটি প্রায় জমজ অল্পবয়সী সুন্দরী মেয়ের টানটান দুই চোখের রহস্যময় চাউনি, ওদের অপরূপ সুন্দর মুখের চন্দ্রভা, ওদের দু-জোড়া প্রগল্ভা ছটফটে-উদ্ধত স্তন, সরু নর্তকী কোমরের ছন্দ, উছ্লানো নিতম্বের আস্ফালন… তাঁকে ক্রমশ অস্থির মাদকতায় পাগল করে তুলতে থাকে| দিনের পর দিন যৌনতায় সজাগ বিনিদ্র রাত্রি কাটতে থাকে বিভুকান্তের নববধু বিভাবরীর পাশে| বিভা নিজে যথেষ্ট সুন্দরী, কিন্তু মায়ের থেকে যেন দুটি কন্যার পাতালস্পর্শী এক দুর্বার আকর্ষণের জালে অসহায় কীটের মতো তিনি জড়িয়ে যাচ্ছিলেন দিনের পর দিন ধরে| নানাভবে তন্নিষ্ঠা ও তনিকার জীবনে নিজেকে উপস্থিত করতে চেষ্টা করতেন বিভুকান্ত| ওদের মন জয় করার তাঁর চেষ্টার অন্ত ছিল না| যখন যা আবদার, সবই তিনি শুনতেন| এবং সে জন্য ক্রমশঃ, দিনের পর দিন বিভাবরীর রোষদৃষ্টির পাত্র হয়ে পরছিলেন তিনি| ‘মেয়েদুটোকে আদর দিয়ে দিয়ে এমনভাবে মাথায় তোলা’ বরদাস্ত করতে পারতেন না বিভাবরী| কিন্তু প্রতাপশালী স্বামীর বিরুদ্ধে জোরালো কোনো মন্তব্য করার সাহসও তাঁর ছিল না|
নানা অছিলায়, আবদার আদর ও খুনসুটির নামে বিভুকান্ত তনিকা ও তন্নিষ্ঠার গাল টিপে দেওয়া, গালে চুমু খাওয়া, কথায় কথায় জড়িয়ে ধরা.. প্রভৃতি আপাত পিতৃসুলভ সম্পর্ক তৈরী করতে সক্ষম হয়েছিলেন| কিন্তু এতে তাঁর হৃদয়ের আগুন নেভার বদলে যেন দাবানল হয়ে উঠতে শুরু করে| প্রতিটি স্পর্শ, প্রতিটি ছোট্ট নিছক চুমু তাঁর দেহে আগুন জ্বালিয়ে তুলতে থাকে| কিন্তু কিছুতেই তিনি বাধা লংঘন করেন আর এগোতে পারেন না…. কিন্তু তাঁর মন চাইছে যে আরও বেশি! চাইছে মেয়েদুটির অমন স্ফূরিত নরম পাপড়ির মতো ঠোঁটে চুমু খেতে! চাইছে অমন মসৃণ ঘাড়ের ডৌলে কামড় বসাতে!চাইছে ওদের ঘন চুলে নাক ডুবিয়ে সুগন্ধ নিতে! চাইছে অমন খাড়া খাড়া দুর্বিনীত স্তন মুঠো করে ধরে সজোরে টিপতে! চাইছে ওদের আগুন ঝরানো তরুণী শরীর নিজের শরীরে চেপে ধরে পুরে যেতে! কিন্তু সে সমস্ত ভাবনা রাত্রে নিদ্রিত স্ত্রীর পাশে একাকী স্বমেহনের স্মারক হিসেবেই রয়ে যেতে থাকে|
দু-বছর এমন ভাবে কেটে যায়| তারপর একদিন অযাচিত ভাবেই যেন সুযোগ খুঁজে পান বিভুকান্ত| সুযোগটি আসে বেশ অপ্রত্যাশিতভাবেই!
গাড়ি নিয়ে নাচের স্কুল থেকে তনিকাকে আনতে গিয়েছিলেন বিভুকান্ত| গাড়ি পার্ক করে রেখে তিনি বিল্ডিঙ্গের ভিতরে ঢুকে দেখেন সমস্ত শুনশান ফাঁকা| অর্থাত ক্লাস অনেক আগেই শেষ হয়ে গেছে| তা হলে তনিকা কোথায়?
সুবিস্তৃত হলঘর দিয়ে তিনি হেঁটে যান, তাঁর পায়ে শব্দ ওঠে না| হলঘরের শেষপ্রান্তে তিনি দরজা ভেজানো ঘরটির সামনে আসেন| দরজায় টোকা মারতে গিয়েও দেখেন তা সামান্য ফাঁক করা! ভিতর থেকে আলো এসে পরছে| তিনি কি মনে করে তা আরো ফাঁক করেন| এবং ভিতরের দৃশ্যটি দেখে তিনি চমকে ওঠেন|
তনিকা নাচের পোশাক পরেই তাঁর বিপরীত মুখী দেয়ালে ঠেসান দিয়ে আছে| তার শরীরের উপর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ভাবে ঝুঁকে আছেন আর কেউ নয়, তারই নৃত্যশিক্ষক! যিনি তনিকার থেকে বয়সে অন্তত তিনগুন বড়! এহেন অবস্থায় সেই স্বনামধন্য শিক্ষণ তনিকার ঠোঁটদুটি প্রানপনে চুষে চলেছেন, তাঁর ডানহাতটি তনিকার কোমরের তলায়, মৃদু মৃদু চাপ-প্রয়োগ করছে| তনিকার একটি হাত ওঁর ধুতির ভিতরে…
কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে বিভুকান্ত দেখতে থাকেন,,… কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁর দুহিতা দরজায় তাঁকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখতে পায় এবং তার দুই চক্ষু বিস্ফারিত আকার ধারণ করে! সঙ্গে সঙ্গে বিভুকান্ত দরজা ভেজিয়ে দিয়ে বাইরে চলে আসেন বিল্ডিঙ্গের|
কয়েক মুহূর্ত পরেই তনিকা বেরিয়ে আসে তিনি ওকে নিয়ে নিঃশব্দে গাড়িতে ওঠেন| কিছু বলেন না|
তনিকা সারাটি রাস্তা জুরে তাঁর কাছে কাকুতি মিনতি করতে থাকে, তার মুখে একই কথা: ‘বাপ্পি, মা-কে প্লিইজ কিছু বলো না! মা যেন জানতে না পারে.. প্লিইইজ! তাহলে সর্বনাশ হয়ে যাবে আমার!’
বিভুকান্ত প্রথমে নিশ্চুপ থাকেন| তারপর শেষপর্যন্ত গম্ভীরভাবে বলে ওঠেন গাড়ি চালাতে চালাতে:
“ঠিক আছে, মা কে বলবো না, তবে একটা শর্তে!”
-“কি? তুমি যা বলবে…”
-“সময় মতো জানতে পারবে!” পাথরকঠিন গলায় বলেন বিভুকান্ত| কিন্তু তাঁর মনে তখন সম্ভাবনার ঝড় বইছে……!… তিনি একবার রিয়ারভিউ মিররে তনিকার উর্বশীর ন্যায় সুন্দর কাতর অবয়বটি একবার দেখে নেন…

এই ঘটনার দু-দিন বাদে তনিকা গোপনে পিতার কাছ থেকে একটি সালোয়ার কামিজ উপহার পায়| এবং আদেশ পায় সেই দিনই দুপুরে, নিভৃতে তাঁর সাথে তাঁর কক্ষে দেখা করতে সেটি পরিধান করে| সেই সময়টায় বিভাবরী বাপের বাড়ি গিয়েছিলেন কয়েকদিনের জন্য, তাই বিভুকান্ত একাই থাকতেন| তনিকা সালোয়ার কামিজটি পরিধান করে নিজেকে আয়নায় দেখে বেশ চমত্কৃত হয়| কামিজটি কমলা রঙের ও সালোয়ারটি সাদা| কামিজটি বেশ চাপা| তার সুডৌল নিতম্ব ও সরু কোমরের সাথে সেঁটে রয়েছে, এবং তার উদ্ধত পরিপক্ক স্তনদুটি টানটান হয়ে ফুলে রয়েছে কামিজের কাপড় প্রসারিত করে| শুধু তাই নয়, কামিজটির গলার কাছটি অনেকটা বড় করে কাটা| তার ফর্সা স্তনসন্ধি বেশ কিছুটা উন্মুক্ত!
তনিকা বেশ অবাক হয়ে নিজেকে আয়নায় দেখে| তার মনের কোনে সন্দেহের মেঘ, কিন্তু সে এই ভেবে আশ্বাস পায় পিতা হয়তো সাইজে ভুল করেছেন| সে কামিজের ওড়নাটি দিয়ে বুকটা ঢেকে নেয়| কিন্তু তার সন্দেহ লাগে আরেকটি কারনেও! পিতা তাকে নির্দিষ্ট করে চুল বাঁধবারও নির্দেশ দিয়ে রেখেছেন! একটি মোটা বিণুনী করে বাঁধতে হবে!
যাই হোক পিতার নির্দেশ মতো সাজগোজ করে তনিকা সন্তর্পনে গিয়ে পিতার ঘরের দরজায় টোকা মারে আলতো করে| -“ভিতরে আয়!”
তনিকা ভেজানো দরজা খুলে ভিতরে ঢোকে| বিভুকান্ত বিছানায় তাকিয়ে ঠেস দিয়ে বসে ছিলেন| তাঁর পরণে সাধারণ গেঞ্জি ও পাজামা| তনিকা ভিতরে ঢুকতে তিনি কয়েক মুহূর্ত নিষ্পলক ওর দিকে চেয়ে থাকেন, তারপর গলা খাঁকারি দিয়ে বলে ওঠেন:
“পেছনে দরজাটা ছিটকিনি এঁটে বন্ধ করে দাও মামনি!”
তনিকা দরজা বন্ধ করে বিছ্নায় পিতার দিকে এগিয়ে আসে|
-“কেমন লাগছে বাপির দেওয়া নতুন সালোয়ার কামিজ? ফুলতুসী?” বিভুকান্ত ভারী গলায় শুধান|
তনিকা মিষ্টি হেসে ঘাড় কাত করে|
-“উম্ম.. ওড়নাটা ওভাবে দেয় না!” মেয়ে বিছনার পাশে এলে বিভুকান্ত দু-হাত উঠিয়ে ওর বুকের উপর থেকে ওড়না সরিয়ে ওর গলায় পিছন দিকে উল্টো করে ঝুলিয়ে দেন|
তনিকা অপ্রস্তুত হয়ে পড়ে পিতার মুখের ঠিক সামনে আঁটো ভাবে ফুলে থাকা তার খাড়া খাড়া দুখানা স্তন ও উন্মোচিত স্তনসন্ধি নিয়ে… লজ্জায় তার গন্ডদেশ লাল হয়ে ওঠে|
বিভুকান্তের দৃষ্টি চুম্বকের মতো কয়েক মুহূর্ত দুহিতার অপরূপ স্তন-সৌন্দর্য্যে চুম্বকের মতো আটকে থাকে| তারপর তিনি মুখ নামিয়ে নিজের গলা খাঁকারি দিয়ে থাই চাপড়ে ইশত কেঁপে ওঠা গলায় বলেন:
“এস মামনি, বাপ্পির কোলে বস!”
তনিকা আরও অপ্রস্তুত বোধ করে! কোনদিন সে পিতার কোলে এভাবে বসেনি| সে মুখে একটা আধো হাসি নিয়ে সসংকোচে বিছানায় উঠে পিতার বাম খাইয়ে নিতম্ব স্থাপন করে বসে|…
-“হুম” বিভুকান্ত মেয়েকে আলগা ভাবে আলিঙ্গন করেন| তনিকা বুঝতে পারে পিতার শ্বাস প্রশ্বাস দ্রুত ও উত্তপ্ত, সে কিছু বলেনা| তার অস্বস্তি লাগে|
নিজের শরীরের এত কাছে অপ্সরার মতো সুন্দরী অল্পবয়্সী ললনার উপস্থিতি, ওর পাগল করে দেওয়া সৌন্দর্য্যের আঁচ যেন গায়ে লাগছে বিভুকান্তের! থাইয়ের উপর ওর নরম-গরম নিতম্বের যেখানে চাপ, ঠিক তার পাশেই তাঁর উন্মত্ত পুরুষাঙ্গ পাজামা ঠেলে ফুলে উঠে টনটন করছে| ওর অমন সুন্দর মুখের ইশত অপ্রস্তুত ভাবটির লালিমা, ওর ফর্সা কপালে এসে পড়া কয়েকটি চুল, ওর মরাল গ্রীবা, নরম স্তনের খাঁজ, কামিজে সটান ফুলে ওঠা তাঁরই দিকে যেন উঁচিয়ে থাকা দুটি পয়োধর, সরু কোমরের ইশত বেঁকে থাকার অপূর্ব ভঙ্গি, নিতম্বের দৌল…. সবকিছু যেন একত্রে বিভুকান্তের হৃত্গতি বাড়িয়ে দিচ্ছে! তাঁর ঠোঁট শুকিয়ে এসেছে,… বাহুডোরে এহেন অগ্নির ন্যায় রমণী-দ্যুতি নিয়ে|
তিনি এবার আলতো করে নিজের অল্প কাঁপতে থাকা ডানহাতের আঙ্গুলগুলি তনিকার নরম গালে ছোঁয়ান, তারপর সেখান থেকে নেমে ওর স্কন্ধ বেয়ে ওর বাহুতে রাখেন, হাত বুলান, নরম মাংস মুঠোয় নিয়ে অল্প চাপ দেন ভারী শ্বাস নিয়ে… তাঁর শরীর জুরে কি এক উত্তেজনার ও নতুন সুখের আলোড়ন শুরু হয়েছে যেন! তরতাজা, জলজ্যান্ত, নরম উত্তপ্ত তরুণী শরীর স্পর্শের প্রত্যেকটি আবেশে যেন দেহের সমস্ত তন্ত্রীতে কি এক অনাস্বাদিত পুলক ও ততোধিক ক্রমবর্ধমান ভোগলিপ্সার এক নিষিদ্ধ হাতছানির আহ্বান!… তনিকা এবার চোখ তুলে চায়, “কি করছ বাপ্পি!…” সে অস্ফুটে বলে|
“হ্র্মম..” গলা খাঁকারি দিয়ে উঠে বিভুকান্ত এবার গম্ভীর স্বরে বলে ওঠেন “আমি কি করছি তা নয়, কথা হচ্ছে নাচের ক্লাসে তুমি কি করছিলে তাই নিয়ে রূপসী!”
তনিকা দ্রুত চোখের পাতা নামিয়ে নেয়, একটি গভীর শ্বাসে তার বুক ফুলে ওঠে ও নামে “প্লিইজ বাপ্পি, তুমি যতটুকু দেখেছো তার বেশি কিছু হয়নি! সত্যি বলছি!”
-“সত্যি বলছ তার প্রমাণ কি?” তনিকা চুপ করে মাথা নিচু করে থাকে|

“এমন খবর অবিলম্বেই তোমার মা-কে জানানো উচিত!”
-“না!” তনিকা ততক্ষনাত চোখ তোলে “মা, এমনকি বোনও যেন না জানতে পারে, প্লিইস বাপ্পি!”
-“হম..” গম্ভীর ভাবে বিভুকান্ত তনিকার বাহু থেকে হাত ওর মসৃণ ফর্সা বাঁহাত বেয়ে নামান, ওঁর হাতের খরখড়ে স্পর্শে তনিকার গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে অল্প… তিনি তনিকার সরু, নরম সুন্দর আঙুলগুলো নিয়ে খেলতে খেলতে বলেন “আমি তোমার কাছ থেকে যে এটা আশা করিনি সোনামণি!”
তনিকা নিশ্চুপ|
“তোমরা দুই বোনে যখন যা চেয়েছে তখন তাই কিনে দিয়েছি, সে যতই দাম হোক না কেন! তোমাদের মায়ের তীব্র আপত্তি মাথায় নিয়েই! তার এই প্রতিদান কি আশা করি? তুমিই বলো?” তিনি তনিকার হাত ছেড়ে এবার ওর নরম উত্তপ্ত উরুর উপর হাত রাখেন সালোয়ারের উপর দিয়ে… তনিকা একটু সিঁটিয়ে ওঠে, পিতার আলিঙ্গনে অপ্রস্তুত ভাবে নড়েচড়ে ওঠে|
“বলো?” তিনি ওর নরম উরুতে চাপ দেন| তাঁর শরীর দিয়ে যেন বিদ্যুত-তরঙ্গ খেলে যায়… তনিকা শিউরে ওঠে|
“বা-বাপ্পি,… আমি সরি!… “ সে কোনরকমে বলে ওঠে শুকনো গলায়|
-“হুম… এটাই আমি শুনতে চেয়েছিলাম সুন্দরী!” খসখসে গলায় বিভুকান্ত বলে ওঠেন| তাঁর হাত তনিকার উরু থেকে ওর নিতম্বের তানপুরায় এসে থামে কিছুক্ষনের জন্য| “ওই বুড়ো মাস্টার তোমার শরীরের কোন কোন জায়গায় হাত দেয়?”
তনিকা কিছু বলতে পারে না, চুপ করে থাকে, নিজের নিতম্বের উপর পিতার হাতটি যেন তার গায়ে ছ্যাঁকা দিচ্ছে!
বিভুকান্তের হাত উঠে আসে ওর কোমরের খাঁজে, তারপর সেখান থেকে অত্যন্ত সাহসী এক পদক্ষেপে সরাসরি ওর কামিজে ফুলে ওঠা বাম স্তনের উপর!
তনিকার দেহ শক্ত হয়ে টানটান হয়ে ওঠে স্তনের উপর পিতার হাতের গরম খসখসে স্পর্শে, কিন্তু কোনো এক জাদুমন্ত্রের বলে সে বাধা দিতে পারে না! তার অঙ্গপ্রত্যঙ্গ যেন অসার হয়ে গেছে!
“মাস্টার এখানে হাত দেয়?” বুকের ভিতর হাজার মাদলের দামাল আস্ফালন চাপতে চাপতে ডানহাতের তালুর তলায় মেয়ের সুডৌল অষ্টাদশী স্তনের গঠন অনুভব করতে করতে ওর চোখের দিকে চান বিভুকান্ত|
তনিকার দুটি পাপড়ির মতো ঠোঁট কেঁপে ওঠে, তার মুখ দিয়ে কোনো শব্দ বের হয় না|
দুহিতার কাছ থেকে কোনো উত্তর না পেয়ে বিভুকান্ত ইতিমধ্যে টিপে ধরেছেন থাবার মধ্যে ওর বাম স্তনটি রিক্সার হর্নের মতো করে…. তাঁর উত্তেজনায় দম বন্ধ হয়ে যাবার যোগার,.. স্পঞ্জের চেয়েও নরম, ফুলেল, উত্তপ্ত গ্রন্থিতে তাঁর হাতের আঙুল বসে যাচ্ছে.. কি উত্তেজনাময় অনুভূতি! চোখ বুজে আসে তাঁর, কিন্তু তিনি চোখ বুজতে দেবেন না! চোখ মেলে তিনি দেখছেন এই মনোহর দৃশ্য! যে বহ্নিশিখার রূপের আগুন তাঁকে দু-বছর ধরে পুড়িয়েছে, তাঁর শত বিনিদ্র রজনীর রাতজাগা ছলনাময়ী কুহেলিকা যে মেয়েটি, সেই মেয়েটিকে এখন তিনি তাঁর নিজের পছন্দসই পোশাক পরিয়ে কোলে বসিয়ে তার উদ্ধত পাগল করা স্তন টিপছেন! এ যে কি সুখকর অনুভূতি, তা অনুধাবন করা দায়!
তনিকা শরীর শক্ত করে দৃষ্টি সরিয়ে বসে আছে| তার সাহস নেই একবার দৃষ্টি ফিরিয়ে দেখার তার চাপা কামিজে টানটান খাড়া স্তনের উপর পিতার অসত হাতকে…
তনিকার বাম স্তনটি কয়েকবার মর্দন করেন বিভুকান্ত, তারপর হাত সরিয়ে এনে ওর ফুলে ওঠে ডানস্তনটি ধরেন, চাপ দিয়ে টেপেন নরম উত্তপ্ত মাংসপিন্ডটি,.. কিন্তু এদিকে তাঁর হৃতপিন্ড ফেটে যাবার যোগার! বেশিক্ষণ অষ্টাদশী তরুণীর এমন ফুটন্ত অহংকারী স্তনে তিনি হাত রাখতে পারেন না… হাত উঠিয়ে তিনি ওর নরম স্তনের খাঁজে রাখেন, তারপর ওর গলার ভাঁজে| একটু কেশে গলা পরিস্কার করে তিনি আবার বলে ওঠেন:
“আমি বলেছিলাম আমি তোমার কু-কীর্তির কথা তোমার মা-কে বলবনা| তবে একটা শর্তে|” বলে তিনি চুপ করে ওর প্রতিক্রিয়ার অপেক্ষা করতে থাকেন| তনিকা বেশ কিছুক্ষণ মাথা নামিয়ে চুপ করে থাকে| তার দ্রুত শ্বাস-নিশ্বাস পরছে| কিছুক্ষণ পর একটু স্বাভাবিক বোধ হলে সে মুখ তুলে শুধায়, “কি?”
-“উম..” তিনি বাহুবন্ধনের চাপ বাড়িয়ে ওকে আরও ঘনিষ্ঠ করেন নিজের সাথে| তনিকা কাতরে ওঠে, এত ঘনিষ্ঠ অবস্থায় পিতার শরীর থেকে উঠে আশা ঘন গন্ধটিতে তার শরীর কেমন করে ওঠে… -“শর্ত এটাই যে তোমায় প্রতিদিন এমন সময় খুঁজে নিয়ে এসে বাপ্পিকে খুশি রাখতে হবে! পরপর দু-দিন যদি আমি আদর না পাই, তাহলে মা-কে সব বলে দেবো!”
তনিকা তার আয়ত চোখদুটি তুলে পিতার পানে চায়, তারপর আবার চোখ নামিয়ে বলে “ঠিক আছে বাপ্পি|”
-“আর তোমার সবথেকে নটি ড্রেসগুলো পড়ে আসবে! আমি জানি তোমার আছে!”
তনিকা চুপ করে থাকে| -“উম” বিভুকান্ত এবার সাহস করে ওর নরম গালে একটি চুমু খান “আর আজকের মতো তোমাকে আমি এমন ডেকে ডেকে নিয়ে আসবো না! গরজটা তোমারই! বাপ্পিকে ঠিকমতো খুশি রাখতে পারলে আমরা সবাই মিলে হ্যাপি ফ্যামিলি হয়ে থাকবো! ঠিক হ্যায়? বুঝেছো তো?”
-“বুঝেছি বাপ্পি!” তনিকা শুকনো গলায় বলে ওঠে|
“ঠিক আছে যাও! আজকে বুঝতে পারছি একসাথে অনেক গেলা হয়ে গেছে তোমার! তাই আপাতত ছুটি দিলাম! কাল কিন্তু এক্কেবারে আমার দুষ্টু মিষ্টি মেয়েটা হয়ে আসতে হবে নিজে থেকে! তোমার পারফর্মেন্সের উপর নির্ভর করবে সবকিছু! ও.কে?”
তনিকা ঘাড় নাড়ে| বিভুকান্ত এবার ওর চিবুক তুলে ধরে বলেন “আর আজ থেকে তোমার ওই নাচের স্কুলে যাওয়া বারণ! তোমার জন্য নতুন স্কুল খুঁজেছি আমি! পরশু সেখানে নিয়ে যাবো তোমায়|”
তনিকা দৃষ্টি নামায়, কিছু বলে না|
-“উম যাবার আগে বাপ্পির গালে একটা হামি দিয়ে যাও!” বিভুকান্ত এবার ওকে ছেড়ে দিয়ে বলেন|
তনিকা সসংকোচে পিতার খরখড়ে গালে একটি চুমু খায়, তারপর বিছানা থেকে নেমে প্রায় দৌড়ে পালাতে যায়|
ও দরজার কাছে পৌঁছবার আগেই বিভুকান্ত ডাকেন “তনি!”
তনিকা মুখ ফিরিয়ে তাকায়|
“আমাদের এই আদর-খেলার কথা মা বা কেউ জানতে পারলে কি হবে তা নিশ্চই জানা আছে!”
তনিকা মুখ নামে, তারপর কিছু না বলে প্রস্থান করে|

banglablogboss.webnode.com
Back

Search site

যৌন শিক্ষা ও বাংলা চটি গল্প @ Copyright