অপহৃতা 7

01/01/2008 01:12

-“হ্র্ম্মমম..” শক্তিশালী দুই বাহু দিয়ে ভালো করে পেঁচিয়ে ধরেন তিনি তনিষ্ঠার দুই থাই| মুখের মধ্যে জিভ দিয়ে নারাতে থাকেন ওর ক্লিটোরিস... তাঁর না কমানো খরখরে চিবুক ঘষা খায় তন্নিষ্ঠার নরম, স্পর্শকাতর যোনির ফোলা ঠোঁটদুটির উপর|
 -“উম্ম্হ..” মুখবাঁধা অবস্থায় যতটা পারে গুঙিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা... তা়র নাকের পাটা ফুলে ওঠে... বিছানার চাদর বারবার মুঠো করে ধরছে সে...
 বরেনবাবু এবার ওর কোঁটটিতে নাক ঘষতে ঘষতে ওর পুরো যোনিস্থলটি মুখের মধ্যে চেপে ধরেন| প্রচন্ডভাবে চুষতে থাকেন রসালো ফলটি, আলতো কামড় দিতে থাকেন... তাঁর তন্নিষ্ঠার যোনিভক্ষণের চাকুম চুকুম শব্দে ভরে ওঠে ঘর|
 -“উন্ম্ম্হ.. হ্ম্ম্হ.. উম্ম..” জ্বোরো রুগীর মতো গোঙাচ্ছে তন্নিষ্ঠা, তার ঊর্ধ্বাঙ্গ বারবার ধনুকের মতো বেঁকে বেঁকে উঠছে উত্তেজনায়.... চোখের পাতা অর্ধনিমীলিত তার এখন|
 সমগ্র যোনিদেশের নরম মাংস দাঁতে কাটতে কাটতে বরেনবাবু এবার তন্নিষ্ঠার যোনিখাতটি তলা থেকে উপরে আপদমস্তক লেহন করেন| পাপড়িদুটি ফাঁক করে জিভ ঢুকিয়ে যোনির ছোট্ট গোলাপী গহ্বরটি চাটতে থাকেন জিভ সরু করে ধকতে চেষ্টা করেন, মিষ্টি আঠালো রস এসে লাগে তাঁর জিভে.... সেই স্বাদে আরো মাতোয়ারা হয়ে তিনি আগ্রাসীভাবে ঠোঁট চেপে ডলেন সেখানকার সমস্ত নরম মাংস... চুষতে থাকেন, চাটতে থাকেন...
 -“খ্ম্ম.. হ্ম্ম্হ,..” তন্নিষ্ঠা ছটফটিয়ে ওঠে দেহকাণ্ড বেঁকিয়ে, তার অষ্টাদশী শরীরের রন্ধ্রে রন্ধ্রে, কোষে কোষে যৌন ঝড় উঠেছে..
 -“হৌম্ম্ম...” বরেনবাবু এবার আবার তন্নিষ্ঠার নরম ফুলো যোনিদেশ সমস্তটাই মুখের মধ্যে শুষে নেন, কামড়ে কামড়ে চুষতে থাকেন|
 -“হমম.. হ্প্প্মঃ..” কাটা কইমাছের মতো ছটফট করতে করতে তন্নিষ্ঠা এবার দুই হাতে খামচে ধরে ওঁর মাথার চুল| তার ঢালু উদর ভিতরে ঢুকে যায়, বুক ঠেলে নগ্ন দুটি স্তন দুটি পরিত্রাহী বৃন্ত সহ উঁচিয়ে ওঠে সিলিং তাক করে, ধনুকের ছিলার মতো টানটান হয় তার শরীর...
 ঠিক সেই সময় বরেনবাবু ওর যোনি থেকে মুখ সরিয়ে নেন ওর হাত ছাড়িয়ে| -“উমমমমহ্হ্হঃ.....!!!!” প্রচন্ড হতাশায় মুখের বাঁধনে তীব্র ভাবে গুঙিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা| বরেনবাবু দেখেন শক্ত করে ধরে থাকা সত্ত্বেও ওর নিম্নাঙ্গের থরথর করে কেঁপে ওঠা| উন্মুখ যোনিপুষ্পটি আরক্তিম, ভীষণ স্পর্শোন্মুখ! কিন্তু তা একবারো ছোঁন্ না তিনি| ব্যর্থ কমক্ষরণের এক পৃথিবী হতাশায় ধ্বসে পড়তে পড়তে তনিষ্ঠা গভীরভাবে গুমরিয়ে ওঠে...
 ও কিছুটা শান্ত হলে বরেন পাল আবার উঠে আসেন ওর উপরে| ওর মুখের বাঁধনের উপর, নাকে, চোখে গালে চুম্বন করতে করতে মৃদু হেসে বলেন “খুব আরাম পেয়েছ না রূপবতী?”
 -“উম্ম্হ..” তন্নিষ্ঠা গুঙিয়ে ওঠে, তার বড় বড় চোখদুটি ওঁর উপর নিবদ্ধ|
 -“কি বলছো সুন্দরী?”
 -“উপম.. উমঃ.. হমমম!!” অভিযোগ করে ওঠে তন্নিষ্ঠা|
 -“কি ভাষায় কথা বলছো বুঝতে পারছি না!” বরেনবাবু হেসে ওর চিবুক নেড়ে দেন| তারপর নিজের শক্ত লিঙ্গ দিয়ে তন্নিষ্ঠার মৌচাকে আবার খোঁচা দেন|
 -“উন্ম্মঃ..” তন্নিষ্ঠা শরীর মুচড়ে ওঠে প্রত্যাশায়|
 ওকে হতাশ না করে বরেনবাবু এবার নিজের পুরুষাঙ্গ একটি ধারালো অস্ত্রের মতই যেন আমূল বিঁধিয়ে দেন ওর উত্তপ্ত যোনিকুণ্ডের ভিতরে| “হ্র্মঃ..” চাপা কঁকিয়ে উঠে ফোঁস করে শ্বাস ফেলে তন্নিষ্ঠা, তার দুই টানা টানা চোখের দৃষ্টি ঘোলাটে| মুখের শক্ত বাঁধনের উপর গালদুটো ইশত ফুলে উঠেছে| মন্থন করতে থাকেন বরেনবাবু আবার খাটে অল্প আন্দোলন তুলে| তন্নিষ্ঠা আলগাভাবে ওঁর গলা জড়িয়ে ধরে| কিছুক্ষণ নির্বিকারে ওঁর মন্থন খেয়ে সে এবার ওঁকে চমকে দিয়েই জোরে ধাক্কা মেরে ওঁকে চিত্ করে নিজে ওঁর উপরে উঠে আসে যোনির ভিতর লিঙ্গ বেঁধানো অবস্থাতেই| তারপর ওঁর বুকে দুহাত রেখে চাপ দিয়ে নিজে কোমর নাড়িয়ে সমস্ত যোনিপেশী দিয়ে ওঁর শক্ত তাগড়াই লিঙ্গটি নিংড়ে নিংড়ে মন্থন করতে থাকে|
 -“আহঃ.. মাগো!” সুখে মাতাল হয়ে চোখ বোজেন বরেনবাবু| তাঁর সমস্ত লিঙ্গদন্ডটি যেন একটি অত্যন্ত আরামদায়ক ভেলভেটের শ্বাসরুব্ধকর ফাঁদে আটকা পড়ে দলিত হচ্ছে! তিনি আবারও চমত্কৃত হন অষ্টাদশী যোনির সংক্ষিপ্ততা ও নমনীয়তার আতিশয্যে! তন্নিষ্ঠার হাতে নিজেকে ছেড়ে দিয়ে তিনি তাঁর আগত বীর্যস্খলন বেগকে নানা কৌশলে প্রশমিত রাখার চেষ্টা করতে থাকেন এই তীব্র সুখ দীর্ঘস্থায়ী করার হেতু...
 সময় কেটে যাচ্ছে... খাটে ক্যাঁচ ক্যাঁচ করে শব্দ যেন থামবারই নয়| তনিষ্ঠা এক অশ্বারহিনীর মতো বরেনবাবুর শরীরের উপরে রতিক্রিয়া করে চলেছে| ঘন ঘন নিঃশ্বাস পরছে তার, নরম চুল এসে মুখের উপর ঝুলে পড়েছে সুন্দর ভঙ্গিতে| নগ্ন স্বাধীন দুটি স্তন নিয়মিত ছন্দে ওঠাপড়া করছে|
 আরও কিছুক্ষণ পর আর না পেরে বরেনবাবু তন্নিষ্ঠার দেহটি জাপটে ধরে ওকে নিচে ফেলে দানবীয় শক্তিতে মন্থন করে যান| টানা পনেরো মিনিট মন্থন করে প্রচন্ড গুঙিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠার যোনির ভিতরে কামক্ষরণ করতে থাকেন তিনি ঝলকে ঝলকে!...
 তন্নিষ্ঠা দেহ মুচড়িয়ে ওঠে, সেও কামমোচন করে একইসাথে কেঁপে কেঁপে উঠে...
 সব শেষ হলে বরেন পাল ওর যোনির ভিতর ক্লান্ত লিঙ্গ ঢুকিয়ে রেখেই ওর মুখে চোখে চুম্বন করে যান| কিছুক্ষণ পড় তিনি কি মনে করে ওর মুখের বাঁধন খুলে ওর ঠোঁটের উপর থেকে টেপ খুলে দেন|
 -“আঃ..” তন্নিষ্ঠা শ্বাস ছেড়ে ওঠে, ওর লাল ফোলা ঠোঁটদুটি ইশত স্ফূরিত..-“মমম” বরেনবাবু থাকতে না পেরে মুখে পুরে নেন তন্নিষ্ঠার মারাত্মক সুন্দর দুটি সদ্য উন্মোচিত পাপড়ির মতো ঠোঁট, লজেন্সের মতো চুষতে থাকেন|
 -“মমঃ....” তন্নিষ্ঠা গুমরিয়ে ওঠে| বাধা দেয় না...
 দীর্ঘক্ষণ পর তন্নিষ্ঠার ঠোঁটদুটি চেটেপুটে খাওয়ার পর মুখ থেকে বার করলে তাঁর লালায় টসটসে ভেজা ঠোঁটজোড়া নেড়ে সে বলে ওঠে “আপনি... আমার... ভেতরে করলেন...”
 -“হাহাহাহা..” দরাজ হেসে বরেন পাল বলে ওঠেন “তোমাকে বার্থ কন্ট্রোল পিল গুলো কি এমনি এমনি খাইয়েছি সুন্দরী?”
 তন্নিষ্ঠা কোনো উত্তর করে না|
 -“উম্ম.. উম..” গভীরভাবে ওর সারা মুখ চুমাতে থাকেন বরেনবাবু| ওর গালে, নাকে কামড় দিতে থাকেন|
 তন্নিষ্ঠা বাধা দেয় না| বরেনবাবুর তলায় নগ্ন শরীর নিয়ে কাতরে উঠে সে একটু... কিছুক্ষণ পর বরেন পাল ওকে ছেড়ে উঠে পড়েন| নিজের সমস্ত পোশাক ঠিকমতো পরিধান করে ওকে বলেন “জামা পরে নাও সুন্দরী, তোমায় এখন একটা মজার জিনিস দেখাবো!”
 তন্নিষ্ঠা নিজের অপরূপ নগ্ন দেহ নিয়ে উঠে বসে পড়ে নেয় প্যান্টি ও তারপর উঠে দাঁড়িয়ে সালোয়ার| ব্রা-টি তুলে পরতে গিয়ে দেখে সবকটি হুক ছেঁড়া|
 -“হাহাহা.. দরকার নেই রূপসী! কামিজ পড়ে নাও শুধু!” বরেনবাবু উপভোগ করেন ওর হেনস্থাটা|
 তন্নিষ্ঠা ওঁকে এক সংক্ষিপ্ত রোষানল নিক্ষেপ করে হেঁটে যায় ঘরের কোনে| সেখান থেকে কামিজ তুলে পড়ে নেয়| ইতিমধ্যে বরেনবাবু খাটের পাশে ড্রয়ার খুলে সরু হাতকড়াটি বার করেছেন| তিনি এবার সেটি ওকে দেখিয়ে নাচান –“তোমার শেষ পোশাকটা ভুলে যেও না সুন্দরী!”
 তন্নিষ্ঠা রাগত দৃষ্টিতে ওঁর হাস্যরত মুখের দিকে চায়| তারপর এগিয়ে আসে বিছানায়| ওঁর দিকে পিঠ করে বসে নিজের দেহের পেছনে এগিয়ে দেয় ফর্সা দুটি পুষ্পস্তবকের মতো সুন্দর হাত|
 -“উম” প্রসন্ন চিত্তে তন্নিষ্ঠার দুটি হাত ওর দেহের পেছনে একত্র করে হাতকড়া পরিয়ে আটকে দেন তিনি| ক্লিক করে একটি ছোট্ট ধাতব শব্দে তন্নিষ্ঠার হাতের পিছমোড়া বাঁধন সুরক্ষিত হয়|
 -“কি দেখাবেন?” তন্নিষ্ঠা এবার বরেনবাবুর দিকে মুখ ফিরিয়ে বসে|
 -“উম” বরেন পাল হেসে বিছানা থেকে নেমে ঘরের অন্যপ্রান্তে কম্পিউটারের সামনে আরামদায়ক চেয়ারে এসে বসেন| তারপর নিজের খাইয়ে চাপর মেরে ওকে আহ্বান করেন|
 তন্নিষ্ঠা বিছানা থেকে নেমে এসে স-সংকোচে ওঁর কোলে বসে| কম্পিউটারের দিকে মুখ করে|
 -“উম্ম..” ওকে ঘন করে বাঁহাতে ওর সরু কোমর পেঁচিয়ে জড়িয়ে ধরে নিজের অর্ধজাগরিত শিশ্নস্থলে ওর নরম-গরম নিতম্বের চাপ নেন বরেন পাল| “এক্ষুনি দেখতে পাবে” বলে তিনি কম্পিউটার সুইচ অন করেন|
 কম্পিউটার অন হলে তিনি ডকুমেন্টে ঢুকে একটি ফোল্ডার খোলেন| তার মধ্যে আবার দুটি ফোল্ডার| একটির নাম ‘তন্নিষ্ঠা’ অপরটির নাম ‘তনিকা’|
 তন্নিষ্ঠা বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যায়...
 “হাহা..” হেসে ওর বিস্মিতভাব উপভোগ করে বরেন পাল শুধান “কোনটা আগে দেখবে রূপসী?”
 তন্নিষ্ঠা কিছু বলতে পারেনা,.. হাতের বাঁধনে একটি স্বতস্ফুর্তঃ মোচড় দেয়|
 বরেনবাবু নিজেই ‘তন্নিষ্ঠা’ নামক ফোল্ডারটি খোলেন| বড় বড় থাম্বনেল ভিউতে সাজানো ছবিগুলো দেখে বুঝতে এতটুকু অসুবিধা হয় না তা তন্নিষ্ঠা ও তার পিতা বিভুকান্তের অন্তরঙ্গ রতিক্রিয়ার নানা মুহূর্ত নানা দৃষ্টিকোণ থেকে তোলা|
 গলা শুকিয়ে আসে তন্নিষ্ঠার... কিছুক্ষণ সে নিজের বুকের মধ্যে হৃত্পিন্ডের হাতুড়ি পেটানো শুনতে পায় শুধু... বরেনবাবু হেসে ছবিগুলি স্লাইড-শো তে দিয়ে চালু করেন| তারপর তিনি ডানহাতটি কি-বোর্ড থেকে তুলে তন্নিষ্ঠার বুকের উপর নিয়ে এসে ওর কামিজে সটান ফুলে ফুলে ওঠা উগ্র, খাড়া খাড়া দুটি স্তন এক এক করে পালা করে ধীরে ধীরে, আয়েশ করে মলতে আরম্ভ করেন| মিষ্টি হেসে ওর মুখের দিকে তাকিয়ে বলেন:
 “সব কত হাই ডেফিনিশন! হু হু বাবা,.. সব 4272x2848 পিক্সেল! আড়াই এম.বি সাইজ কম করে প্রত্যেকটার! হাহা..!”
 “আ.. আ.. আপনি কোথা থেকে পেলেন এগুলো?” কোনরকমে বলে ওঠে তন্নিষ্ঠা|
 -“মনে আছে মেনটেনেন্স-এর জন্য তোমাদের ‘অট্টালিকায়’ ছ-মাস আগে কিছু লোক এসেছিলো? হাহা! তোমাদের বাড়িতে সব মিলিয়েও অন্তত গোটা কুড়িটা ক্যামেরা আছে! প্রত্যেকটি মুহূর্ত আমি তোমাদের মনিটর করে চলেছি! হাহা!”
 তন্নিষ্ঠা প্রায় বিস্ফারিত চোখে দেখতে থাকে স্ক্রিনে সরতে থাকা ছবিগুলি| প্রত্যেকটি ছবি অত্যন্ত নিখুঁত, বিশ্লেষিত এবং স্পষ্ট, তার এবং বিভুকান্তের মুখ যে কোনো সন্দেহের উর্ধ্বে স্পষ্ট প্রতিয়মান| এমনকি প্রত্যেকটি ঘর্মবিন্দু পর্যন্ত স্পষ্ট!
 -“উমমম.. তোমার এই নরম-গরম কবুতরদুটো যেন ঠিক আমার হাতের মাপে তৈরী করা!” কামিজসহ তন্নিষ্ঠার স্তন টিপতে টিপতে ওর ঘাড়ের কাছে আরামে বুঁদবুঁদ করে বলেন বরেন পাল| খোশমেজাজে আবার তাঁর যৌনাঙ্গ শক্ত হয়ে খোঁচা দিছে তন্নিষ্ঠার নিতম্বের মাঝে..
 কিন্তু সেদিকে কোনো ভ্রুক্ষেপই নেই তন্নিষ্ঠার, সে রুদ্ধশ্বাসে একেকটা ছবি দেখে চলেছে| ছবি যেন শেষ হতেই চাইছে না!.. তার দু-চোখ গিলে নিচ্ছে সব|-“উম, নিজের ছবি অনেক দেখা হলো, এবার দিদির গুলো তো দেখো!” হেসে উঠে এবার বরেন পাল ওর বুক থেকে হাত উঠিয়ে অন্য ফোল্ডারটি স্লাইড-শো তে চালান| তারপর আবার হাতটি ওর বুকে নিয়ে এসে স্তন মলতে থাকেন আরাম করে|
 তন্নিষ্ঠা ছবিগুলি দেখতে দেখতে এবার ওঁর আলিঙ্গনে দেহে মোচড় দেয় হাতের বাঁধনে টান দিয়ে, -
 “কি-কিন্তু,.. আপনার কাছে এত বড় প্রমাণই যখন আছে বাবার বিরুদ্ধে, তাহলে আমায় শুধু শুধু কিডন্যাপ করেছেন কেন?”
 বরেনবাবু এবার ম্লান হেসে বলেন “আমার ছেলের মৃত্যুর আসল কারন ঢেকে যে ইতর কাজটি তোমার বাবা করেছিলেন সে জন্য যেমন তিনি দায়ী, তেমনি আমার ছেলের আত্মহত্যার কারন, ওর হৃদয় তছনছ করে দেবার জন্য যে দায়ী, সে হচ্ছ তুমি! রাগটা আমার শুধু তোমার বাবার ওপর নয় তোমার উপরেও!”
 তনিষ্ঠা চুপ করে থাকে| মাথা নিচু করে| তারপর বলে ওঠে “কিন্তু আমাকে নিয়ে কি করবেন আপনি শেষপর্যন্ত তাহলে? মেরে ফেলে আপনার ছেলের মৃত্যুর প্রতিশোধ নেবেন?”
 -“হাহা! নানানা!” হেসে তীব্র প্রতিবাদ করে বরেন পাল তন্নিষ্ঠার ডাগর দুটি স্তন থেকে হাত তুলে ওর চিবুক নেড়ে দিয়ে বলেন “এমন অপরূপ সুন্দরী ফুটফুটে একটা মেয়ে তুমি! তোমার বয়সে এত রূপ থাকলে সবারই তা মাথায় চড়ে যায়, যদিও তোমার মতো এতটা হৃদয়হীনা হওয়া সম্ভব কিনা তা আমি বলতে পারবনা! তা ছাড়া এমন সুন্দর, নিখুঁত একটি জীবকে প্রকৃতি থেকে হটিয়ে দেওয়া যে কত বড় অপচয় তা আমি ভালো করে জানি|... তবে সত্য কথা বলি, রাগের মাথায় একবার দু-বার মনে হয় বটে তোমাকে গুরুতর কিছু শাস্তি দেবার কথা! বিশেষ করে যখন আমার ছেলের মুখটা মনে এসে ভাসে..”
 তন্নিষ্ঠা চোখ বুজে গভীর নিঃশ্বাস নিয়ে ওঠে, যার ফলে ওর উদ্দেশ্য ছাড়াই ওর কামিজে ব্রা-হীন স্তনদুটি অত্যন্ত আকর্ষনীয় ভাবে প্রকট হয়ে ওঠে, এবং সঙ্গে সঙ্গেই বরেনবাবুর হাত ওর চিবুক থেকে মসৃণ গতিতে আসে ওর বুকে| পরপর সেদুটি আবার মলতে শুরু করে মুঠো পাকিয়ে পাকিয়ে, পরম আশ্লেষে|
 “তাহলে আমার ভাগ্যে কি আছে?” তন্নিষ্ঠা ওঁর কর্মরত থাবার তলায় বুকটা ঠেলে মুখটা একটু পেছনে হেলিয়ে বলে, তবে সরাসরি ওঁর দিকে না তাকিয়ে| অনুভব করছে সে তাঁর নরম নিতম্বের মাঝে দাবানো ওঁর কঠিন পুরুষাঙ্গের দপদপানি|
 -“উম” বরেনবাবু ওর ঘাড়ে অল্প চুমু খেতে খেতে বলেন্ “তুমি এখন আপাতত আমার প্রিয় বন্দিনী হয়েই থাকবে, indefinitely! তোমার বাবার কনফেশন তো বুঝতেই পারলে আমি কিভাবে আদায় করবো| তার সাথে তোমার মুক্তির কোনো সম্পর্কই নেই!”
 তন্নিষ্ঠা একটি বড় দীর্ঘশ্বাস ফেলে –“আপনাকে কি কোনদিন পুলিশ ছুঁতেও পারবে না এমনটাই বলতে চান?”
 -“হাহা, ওই আশায় থেকোনা রুপসিনী! তোমার বাবার মতো আমারও এদিক –অধিক কিছু কৌশল আছে| বরং তুমি দেখতে পারো হয়তো কোনদিন কোনো পুলিশকাকু তোমার সাথে দেখা করতে এসেছেন আমারি সৌজন্যে! হাহাহা..” অট্টহাস্য হাসেন বরেন পাল|
 -“তাহলে সেই ‘কৌশল’ খাটিয়েই আপনি আপনার ছেলের আত্মহত্যার প্রমাণ যোগার করে নিচ্ছেন না কেন?” তন্নিষ্ঠা চটজলদি উত্তর দেয়|
 -“অতো সহজ নয় রূপসী! সব দুইয়ে দুইয়ে চার নয়! তাছারা এতে মজাই বা কোথায়? আর আমার আসল উদ্দেশ্যও পূরণ হলো না, আমি তোমার বাবার পাবলিক কনফেশন চাই! একেবারে আনুষ্ঠানিক আয়োজনে! হাহা!”
 তন্নিষ্ঠা হাতের বাঁধনে টান দিয়ে ওঠে, কিছু বলে না| তার দৃষ্টি আবার স্ক্রিনে তনিকা ও বিভুকান্তের রতিলীলার বর্নাঢ্য পরিবেশনের দিকে ফেরে| -“উম” চুমু খান বরেন পাল তন্নিষ্ঠার ঘাড়ে, গালে, কানের লতিতে “তবে তোমার আমার সাথে এই সুদীর্ঘ ‘ভাগ্য’ কে দুর্ভাগ্য বা সৌভাগ্য করা কিন্তু তোমার হাতে!”
 -“কিভাবে?” তন্নিষ্ঠা বলে|
 -“উম্ম..” হাতের চেটো দিয়ে তন্নিষ্ঠার বুকে সজোরে চাপ দিয়ে ওর নরম স্তনগুলি ওর বুকের সাথে ঠেস দিয়ে ডলে ডলে আরাম নিতে নিতে ওর কানের লতি আলতো করে দাঁতে কাটেন বরেনবাবু-
 “তোমার এই রাগী ভাব একেবারে ঝেরে ফেলে দিতে হবে| একদম আদূরে হতে হবে| দুষ্টু-মিষ্টি হতে হবে! আদর খেতে চাইতে হবে! হাসতে হবে! আমি জানি তুমি আমার তোমার এই দুষ্টুমি-খেলা খুব পছন্দ করো ভেতরে ভেতরে! উমমম... তোমাকে একইসাথে আমার আইডিয়াল গুডি-গুডি গার্ল এবং সেক্স-টয় হতে হবে! আমকে সবসময় এন্টারটেইন করে রাখতে হবে! তুমি নিজেও ভালো করে জানো এগুলো তোমার পক্ষে মোটেই শক্ত কাজ নয়!”
 তন্নিষ্ঠা হাতের বাঁধনে মোচড় দিয়ে বলে “তাই যদি চান, তাহলে আমায় বেঁধে রাখছেন কেন?”
 -“হাহাহা... শোনো রূপসী! তোমায় বেঁধে রাখবো, কি ল্যাংটো করে রাখবো, অথবা অন্য কিছু তা একান্তই আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার! সেই সমস্ত নির্বিশেষে, সব মেনে নিয়েই তোমায় যা-যা বললাম, তেমন হতে হবে| বুঝেছ?”
 তন্নিষ্ঠা নিশ্চুপ থাকে| স্বতঃস্ফূর্তভাবেই তার অবাধ্য দুই হাত বাঁধনে মোচড় দিছে| “বুঝতে পেরেছো?” বরেনবাবু ওর স্তনে জোরে চাপ দেন|
 -“বুঝতে পেরেছি!” তন্নিষ্ঠা মুখ ফিরিয়ে বলে ওঠে, তার চুলের কিয়দংশ তার মুখে লুটিয়ে পড়ে “আর আমি যদি তা হই তাহলে কি আপনি আমায় তারাতারি ফিরিয়ে দেবেন?”
 -“উম, তারাতারি ফিরিয়ে দিতে পারি, আবার তুমি ফিরে যেতে নাও চাইতে পারো! হাহা, দেখবে তোমার জীবন চেঞ্জ হয়ে যাবে!”
 -“হুম..” তন্নিষ্ঠা মুখ নিচু করে|
 -“উম্ম.. কি,.. জ্যেঠুকে একটা সুন্দর হাসি উপহার দাও দেখি!” তিনি হেসে উঠে বলেন|
 তন্নিষ্ঠা মাথা নিচু করে থাকে| কিছুক্ষণ পরে মুখ তুলে সে একটি স্মিত হাসি হাসে বরেন পালের পানে চেয়ে|
 মুগ্ধ হয়ে তন্নিষ্ঠাকে প্রথম হাসতে দেখেন বরেনবাবু| তাঁর হৃদয় চলকে ওঠে, কি অবর্ণনীয় সুন্দর তন্নিষ্ঠার হাসি! যেন ওর রূপের সরোবরে এইমাত্র কেউ ঢেউ তুলে দিয়ে গেছে!.. মন্ত্রমুগ্ধের মতো তিনি মুখ নামিয়ে ওর ঠোঁটে চুমু খান একটি| তন্নিষ্ঠা মুখ নামিয়ে নেয়| বরেনবাবু আরও কিছুক্ষণ তন্নিষ্ঠার নরম স্তনদুটি চটকান নীরবে| তারপর ওকে কোল থেকে নামিয়ে চেয়ারে বসিয়ে দিয়ে উঠে দাঁড়ান| বলেন-
 “তুমি বরং ছবিগুলো দেখতে থাকো, আমি টুক করে একটু চান করে নিই!”
 তন্নিষ্ঠা শৃঙ্খলিত অবস্থায় চেয়ারে বসে পিঠ বেঁকিয়ে শরীরে একটি মোচড় দিয়ে ওঠে ওঁর দিকে তাকিয়ে... তারপর স্ক্রিনের দিকে তাকায়|
 বরেনবাবু ঘর থেকে নিষ্ক্রান্ত হন|
 ওঁর পদশব্দ মিলিয়ে যাবার পর তন্নিষ্ঠা দ্রুত নিজের পিছমোড়া করে বাঁধা হাত সুচারু নমনীয়তা ও দক্ষতায় বেশ কিছুক্ষণ চেষ্টা করে নিজের নিতম্বের তলা দিয়ে গলিয়ে ও দু-পা দিয়ে গলিয়ে দেহের সামনে আনে| তারপর কম্পিউটারের কিবোর্ডে দুহাত তুলে দ্রুত টাইপ করে স্লাইড-শো বন্ধ করে দুটি ফোল্ডার কপি করে| তারপর ডকুমেন্ট থেকে বেরিয়ে এসে ডি-ড্রাইভে ঢুকে একটি অত্যন্ত মামুলি একটি সিনেমা ও দরখাস্ত ভরা ফোল্ডার খুঁজে নিয়ে তার মধ্যে পেস্ট করে| করে রাইট ক্লিক করে ফোল্ডার-দুটি হিডেন করে দেয়| অদৃশ্য হয় তা চোখের সামনে থেকে| এরপর সে ফিরে গিয়ে ডি-ড্রাইভের উপর রাইট ক্লিক করে প্রপার্টিতে গিয়ে সিকিউরিটি অপশনে সবকটি এট্রিবিউট ‘allow’ করে দেয়| তারপর সব বন্ধ করে আগের জায়গায় ফিরে এসে স্লাইড-শো চালু করে দেয়| তারপর আবার হাতকড়া-বাঁধা হাতদুটি পা ও নিতম্ব দিয়ে গলিয়ে দেহের পেছনে চালান করে| পুরো ঘটনাটা ঘটে যায় পাঁচ-মিনিটের মধ্যে|

banglablogboss.webnode.com
Back

Search site

যৌন শিক্ষা ও বাংলা চটি গল্প @ Copyright