অপহৃতা 4

01/01/2008 01:08

-“সমস্ত ফটোগুলো যোগার করেছো?”

 

-“জি, টাইম লাগবে,..”

-“সে তো অনেকদিন ধরেই শুনছি..”

-“স্যার, এগুলো সিকিউরিটি ক্যামেরায় তোলা, যদি সত্যকারের পরিস্কার হাই ডেফিনিশন ডিটেলস চান, তাহলে আমাকে ইমেজ সফটওয়ার এগুলোকে নিয়ে কাজ করতে হবে বেশ কয়েকদিন| কিন্তু আপনি যদি মিঃ তেওয়ারীকে পাঠাতে দেন... তাহলে..”

-“না!”

-‘কিন্তু স্যার উনিও বিশ্বাসযো...”

-“তোমার কি রেইস দরকার?”

-“মানে স্যার,...”

-“ঠিক আছে যাও| খবরদার এই কথা যেন অন্যত্র না হয়| হলে কি হয় তোমার আগের জনকে দিয়েই প্রমান আছে| কাজ করো|”

-“ইয়েস স্যার! আ..আই...”

-“Haha, Don’t be alarmed, just do your job o.k?”

-“I understand sir! Absolutely sir!”

বৈঠকখানায় সোফায় পায়ের উপর পা তুলে বসে থাকা সাদা পাঞ্জাবি-পাজামা পরিহিত বরেন পাল স্মিত হাসিমুখে বস্ক ভদ্রলোকটিকে ইশত অধোবদনে বেরিয়ে যেতে দেখেন| তারপর হাঁক পারেন “সন্ধ্যা!”

-“যাই!..” ভিতর থেকে একটি মোটা স্ত্রী-কন্ঠ ভেসে আসে|

-“বেলা ৯-টা! কাজ কতদূর?”

-“হচ্ছে, শেষ হয়ে এসেছে!”

বরেনবাবু সোফা থেকে উঠে পরেন| দোতলায় এসে তন্নিষ্ঠার ঘরে ঢোকেন তিনি| সকালের আলোয় ভেসে যাচ্ছে ঘর| তন্নিষ্ঠা জানলার সামনে একটি সিলুয়েটের মতো বসে ছিল| বরেন পালকে ঢুকতে দেখে সে বিছানার ধারে ওঁর মুখোমুখি পা ঝুলিয়ে বসে| সামান্য চঞ্চল সন্ত্রস্ততা ওর অবয়বে|

বরেনবাবু দু-চোখ ভরে দেখেন তাঁর সামনে পরমা সুন্দরী মেয়েটিকে| ওর হাতদুটি পিছমোড়া করে হাতকড়া দিয়ে আটকানো, পা-দুটিও শক্ত করে বাঁধা সাদা ফিতে দিয়ে একসাথে| তবে আজ ওর মুখ বাঁধা নেই| সুন্দর অপরূপ লাবন্যমন্ডিত মুখটির দু-পাশে আজ ওর চুল খুলে রাখা আছে যা বিস্তৃত ওর কাঁধ অবধি| ওর পরনে এখন একটি হলুদ রঙের ব্লাউজ ও নীল রঙের মিনি-স্কার্ট| স্তনদুটি দুখানি কৌতূহলী টিলার মতো ব্লাউজ ঠেলে উঁচু-উঁচু হয়ে আছে, দুটি মোমের মতো ফর্সা মসৃন পা হাঁটু থেকে উন্মুক্ত, পরস্পর সংবদ্ধ| তন্নিষ্ঠার মুখে, ওর অপূর্ব সুন্দর টানা-টানা দুটি চোখে সকালের মিষ্টি আলো পরে মায়াবী লাগছে| স্বতঃস্ফুর্তভাবেই দু-একবার হাতের বাঁধনে টান দিচ্ছে সে| তার দৃষ্টি বরেন পালের দিকে নিবদ্ধ|

বরেনবাবু হেসে ওর সামনে একটি চেয়ার টেনে এনে একেবারে মুখোমুখি বসেন| তারপর কোনো কথা না বলেই দু-হাত তন্নিষ্ঠার বুকে তুলে দিয়ে ব্লাউজের উপর দিয়ে একেক হাতে ওর একেকটি স্ফীত স্তন ভরে রিক্সার হর্ন পাম্প করার মতো করে টিপতে শুরু করেন, নিয়মিত ছন্দে|

-“আঃ!” তন্নিষ্ঠা ঘাড় বেঁকিয়ে হাতের বাঁধনে মোচড় দিয়ে বিরক্তি ও লাঞ্ছনায় ঠোঁট কামড়ে বলে ওঠে “আপনার আর কোনো কাজ নেই?”

-“হাহা, নাঃ, সব কাজ সেরেই তো ফুলটুসিকে দেখতে আসা!” হেসে দরাজ কন্ঠে বলেন বরেন পাল| তাঁর দুটি থাবা যন্ত্রের মতো টিপছে তন্নিষ্ঠার উদ্ধত দুটি স্তন|

-“উম্ম্হ!” শৃঙ্খলিত অবস্থায় শরীরে মোচড় দিয়ে উঠে তন্নিষ্ঠা| কিন্তু এতে বরেন পালের দু-হাতে বন্দী তার স্তনদুটিতে টান লাগে| একমুখ বিরাগ নিয়ে সে ওঁর পানে চায়|

-“উম্ম, ব্রেকফাস্ট করেছো?”

-“আপনার কি মনে হয়!” সঙ্গে সঙ্গে উত্তপ্ত জবাব তন্নিষ্ঠার|

-“সন্ধ্যা কখনো তোমায় না খাইয়ে রাখবেনা! হাহা!” হেসে বরেন পাল দু-হাতে তন্নিষ্ঠার মখমল নরম স্তন আরও চটকিয়ে চটকিয়ে টেপেন, তাঁর দুহাত তন্নিষ্ঠার বুকের নরম মাংসপিন্ডদুটি নিয়ে নিবিড়ভাবে সংকুচিত হচ্ছে ওর ব্লাউজে গভীর ভাবে বসে গিয়ে গিয়ে, কাপড় টান দিয়ে|

-“আহ..” অস্ফুটে কঁকিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা এবং হাতের বাঁধনে আরো কিছু নিষ্ফল অসহায় টান...তারপর কতকটা নিজের এমন অবস্থা যেন মেনে নিয়েই সে মুখ তুলে বরেনবাবুর দিকে চেয়ে বলে “সত্যি করে বলুন না আপনি কি চান? বাবার কাছে? না মামার কাছে?”

-“হাহাহাঃ,” হেসে ওঠেন বরেনবাবু জোরে| তাঁর কন্ঠস্বরে গমগম করে ওঠে ঘর| তারপর সামলে বলেন “তুমি বুদ্ধিমতি| একটা জিনিস ঠিকই ধরেছে, চাহিদা আমার অবশ্যই আছে|”

-“কি?”

-“উম, সেকথা তোমাকে বলে কি হবে! তুমি তো আমার বন্দিনী!”

-“আমায় আপনাকে বলতেই হবে!” উদ্ধতভাবে বলে ওঠে তন্নিষ্ঠা| -“হাহা..” হাসেন বরেনবাবু গলা খুলে, “নইলে তুমি কি করবে সোনামনি ফুলকুমারী?” তিনি ডানহাতে অষ্টাদশীর স্তন মলতে মলতে বাঁহাত তুলে ওর চিবুক নেড়ে দেন|

 

-“আঃ!’ কঁকিয়ে উঠে বাঁধনে শক্ত টান দেয় তন্নিষ্ঠা... তার মনে হয় ইচ্ছা করেই তাকে রাগিয়ে দেবার জন্য এমন ভাবে তার স্তনপীড়ন করছেন বরেনবাবু| সে এবার মুখ তুলে কিঞ্চিত শান্ত স্বরে ওঁর দিকে চোখ তুলে বলে “আপনাকে তো বলতেই হবে, কতদিন আমাকে এভাবে বেঁধে রাখবেন?”

-“যতদিন আমার মন চায়!”

অপমানে তন্নিষ্ঠার কর্ণমূল উষ্ণ হয়, কিছু বলে না সে|

-“তুমি কোন কলেজে পড়তে আমার তনিকা?”

-“ওই নামে আমায় ডাকবেন না!”

-“কেন?”

-“ওটা আমার দিদির নাম!” বলেই তন্নিষ্ঠা ঠোঁট কামড়ায়..,

-“ও আচ্ছা, তাহলে তনি?”

-“না!”

-“মিষ্টি,.. তনি?” কথাদুটি বলার সময় বরেনবাবু তালে তালে ডানহাতে তন্নিষ্ঠার বামস্তনে তারপর বাঁহাতে ওর ডানস্তনে মোচড় দেন|

-“না বলছি তো!” তন্নিষ্ঠা শীতল দৃষ্টিতে তাকায় ঠোঁটে ঠোঁট টিপে|

-“তাহলে কি বলবো?” বরেনবাবু বাচ্চা ছেলের মতো আবদার করে বলেন খচ খচ করে অত্যন্ত দ্রুত লয়ে তন্নিষ্ঠার স্তনজোড়া মলতে মলতে.. যেন অস্থির হয়ে পরেছেন|

-“কোনো নামে না! আপনার কাছে আমার কোনো নাম নেই!” ঝাঁঝালো কন্ঠে বলে তাঁর মুখোমুখি অপরূপ সুন্দরী ললনা, মুখে বিরাগে চুঁইয়ে পড়া লাবন্য নিয়ে..

-“হাহা উম, ছাড় তো তোমার খালি রেগে থাকা!” বলে হেসে বরেনবাবু তন্নিষ্ঠার স্তনজোড়া নিবিড়ভাবে মুচড়ে ধরে হ্যাঁচকা টান দিয়ে সেদুটি ধরেই ওকে কাছে টানেন, নিজেও চিয়ার নিয়ে এগিয়ে ঘন হন...

-“আহঃ!” তীক্ষ্ণ কন্ঠে কঁকিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা, তার নিতম্ব বিছানার ধার শুধু ছুঁয়ে আছে এখন..

-“উম” এবার তন্নিষ্ঠার স্তন থেকে হাত নামিয়ে বরেন পাল তাঁর সাদা পাজামার দড়ি খুলে বার করে আনেন তাঁর শক্ত খয়রী পুরুষাঙ্গটি|

বন্দিনী তন্নিষ্ঠা দেহ-মুচড়িয়ে ওঠে বরেনবাবুর উন্মুক্ত লিঙ্গ দেখে, মুখ ফেরায় সে|-“উমমমম” বরেনবাবু তাঁর খাড়া শক্ত দন্ডটি তন্নিষ্ঠার ফর্সা নগ্ন দুটি হাঁটুতে ঘষতে থাকেন, তারপর তা ওর মিনিস্কার্টের বাইরে অনেকটা প্রকাশিত দুই পরস্পর ঘনসংবদ্ধ, ফর্সা, সুঠাম উরুর মাঝে নিবির উষ্ণতায় ঢুকিয়ে দেন...

-“আঃ! কি হচ্ছেটা কি!” তন্নিষ্ঠা কাতরিয়ে ওঠে ঠোঁট কামড়ে... কিন্তু ওর দুটি পা শক্তভাবে বাঁধা থাকায় ও নানা প্রচেষ্টাতেও নিজের উরুর ফাঁক থেকে বরেন পালের দন্ডটি বার করতে বারে না|

-“উমমম” তন্নিষ্ঠার দুই উরুর মধ্যে উত্তপ্ততায় নিজের পুরুষাঙ্গ ঢুকিয়ে রেখে এবার বরেনবাবু ওর নগ্ন উরুদুটির দু-ধারে দু-হাত রেখে সুরসুড়ি দিতে দিতে বলেন “এই, আমার দিকে তাকাও ফুলতুসী! জ্যেঠুর দিকে তাকাও!”

তন্নিষ্ঠা আবার নানা-ভাবে নিজের হাতের বাঁধনে টান দিছে, বরেনবাবুর সুরসুরিতে উরু নাড়িয়ে উঠতে বাধ্য হচ্ছে ও, কিন্তু তা করলেই দুই উরুর ফাঁকে বন্দী ওঁর শক্ত, স্পন্দিত পুরুষাঙ্গটি দলে ফেলছে| ওঁর লোমশ দুটি অন্ডকোষ ওর হাঁটুতে লেপ্টে আছে| বরেনবাবু এবার দু-হাত ওর উরুর পাশ থেকে উঠিয়ে তাঁর দুই থাইয়ের মাঝে তন্নিষ্ঠার দুই ফর্সা উরু চেপে ধরেন, তারপর সেই দুই থাইয়ের মাধ্যমে চাপপ্রয়োগ করতে করতে ওর নগ্ন, উত্তপ্ত দুই উরুর মাঝে বন্দী নিজের লিঙ্গদন্ডটি ঘষে ঘষে মলতে মলতে বাঁহাতে ওর স্ফীত ডানস্তনের নরম মাংস মুঠো পাকিয়ে তুলে ডানহাতে ওর চিবুক তোলেন, বলেন:

“তোমার এবং তোমার ফ্যামিলি সম্পর্কে আমার অনেক তথ্য জানা আছে এটুকু এখনকার জন্য বলতে পারি রূপসী তন্বী!”

-“আহ..” দুই উরুর ফাঁকে বরেনবাবুর স্পন্দিত উত্তপ্ত দন্ডটির দলন অনুভব করতে করতে সম্পূর্ণ বেকায়দায় পড়া তন্নিষ্ঠা এবার চোখ তুলে চায় “কি!” তার গলায় জিজ্ঞাসার থেকেও আতঙ্ক বেশি..

-“উম্ম..” বরেনবাবু ওর দুই উরুর ফাঁকে লিঙ্গচালনা করতে করতে আবার দুই হাতে ব্লাউজসহ ওর বুকের নরম মাংসপিন্ডদদ্বয় দলাই মলাই করতে করতে বলেন:

“আমি জানি তোমার বাবা অসমর্থ, কোনো বাস্তব কাজ নেই, শুধু পূর্বপুরুষের জমিদারির জৌলুসে দিন কাটান!..”

-“একথা সবাই জানে!” উদ্ধতভাবে বলে ওঠে সুন্দরী তন্নিষ্ঠা চিবুক ঠেলে|

-“আঃ, পুরোটা শোনো,..” বরেনবাবু ওর দুই স্তনে জোরে মোচড় দেন , “তোমার বাবা অকর্মন্য সেকথা সবাই জানে... কিন্তু ওঁর গোপন গুনগুলি কি সবাই জানে?”

তন্নিষ্ঠা এবার রীতিমতো চমকে উঠে বরেনবাবুর দিকে একবার তাকিয়েই চোখ নামায়, “কি বলতে চাইছেন আপনি?!”

-“হাহা, রূপসী, কি বলতে চাইছি তুমি ভালই জানো!” বরেনবাবু জোরে জোরে তন্নিষ্ঠার দুই ঘনসন্নিবদ্ধ ফর্সা উরুর মধ্যিখানে পুরুষাঙ্গ চালনা করছেন, ঘর্ষণে দলনে উত্তপ্ত করেছেন.. “এমনকি তোমার থেকে এক বছরের বড় প্রায় যমজ বোন-এর কথাও আমি জানি,.. তোমার বাবার তো দুটি সঙ্গিনী!,.. সমাজকে আঙ্গুল দেখিয়েই একই বসতবাড়িতে!”-“দুটি সঙ্গিনী?!?” সন্ত্রস্ত, চমকে ওঠা গলায় জিজ্ঞাসে তন্নিষ্ঠা|

হাসেন বরেনবাবু| এক-চোখ টেপেন তন্নিষ্ঠাকে| তন্নিষ্ঠার সুন্দর মুখ গরম হয়ে লাল হয়ে ওঠে|

বরেনবাবু আরো হাসেন ওর অপদস্থতায়| তিনি এবার ওকে ছেরে উঠে দাঁড়ান দুলতে থাকা খাড়া লিঙ্গ নিয়ে,.. তারপর ওর একেবারে সামনে এসে ওর অপরূপ সুন্দর মুখের সামনে আনেন পুরুষাঙ্গটি| শক্ত ও দৃঢ়, দন্ডটির সারা গায়ে শিরা ফুলে আছে, মুণ্ডটি পরিস্কার, চকচকে| মাঝখানে কাটা ভাঁজ| তিনি তন্নিষ্ঠার চিবুক বাঁহাতে তুলে ওর ঠোঁটে এগিয়ে দেন দন্ডটি.. “নাও, চোষো|”

অদ্ভুতভাবেই, বরেনবাবুর এমন আদেশে কোনো প্রতিবাদ না করে তন্নিষ্ঠা মুখে পুরে নেয় ওঁর খাড়া পুরুষাঙ্গ| প্রায় অর্ধেকেরও বেশি দৈর্ঘ্য| তারপর সুষম গতিতে চুষতে থাকে|

-“আআহঃহঃ ...” আরামে কঁকিয়ে ওঠেন বরেন পাল ওর মুখবিবরের অত্যন্ত আরামদায়ক স্পর্শে| তাঁর লিঙ্গ-শোষনে তন্নিষ্ঠার এমন অপ্রাকৃত প্রতিবাদহীনতায়,.. বা যেন কিঞ্চিত আগ্রহেই, তিনি অবাক হলেও তা প্রকাশ না করে দিয়ে সদ্যব্যবহার করেন| ওর মুখে লিঙ্গ ঠেলে ঠেলে দিতে দিতে বলেন:

-“উমমমম, তোমার সম্বন্ধেও আমি অনেক কিছু জানি প্রিয়তমা!”

-‘অম্নঃ” তন্নিষ্ঠা চুষতে চুষতে এবার ওঁর ভিজে লিঙ্গ মুখ থেকে বার করে বলে “কিছুই জানেন না!”

-“তাই নাকি?” বরেন পাল তাঁর সিক্ত দন্ডটি আবার এক ঠেলায় ওর মুখের ভিতর অনেকটা ঢুকিয়ে দিয়ে বলেন;

-“আঃ, আমি জানি রূপসী তুমি খুব নিষ্ঠুর| নিজের এমন অপূর্ব পাগল করে দেওয়া রূপ সম্বন্ধে তোমার টনটনে জ্ঞান আছে! এবং কার্যসিদ্ধির জন্য তুমি কোনোকিছুতেই পিছপা হওনা! এমনকি শুধুশুধু মজা করার জন্য তুমি কত ছেলের হৃদয় আগুন জ্বালিয়ে তাদের জীবন্ত দগ্ধ হতে দিয়ে হেলায় চলে গেছো!”

তন্নিষ্ঠা চোখ তুলে ওঁর পানে চায় সন্দিগ্ধ জিজ্ঞাসা নিয়ে| তার গোল হয়ে থাকা লাল ঠোঁটের মধ্যে দিয়ে বরেনবাবুর মোটা, বাদামি পুরুষাঙ্গ মসৃন গতিতে ঢুকছে ও বেরোচ্ছে|...

“সৌম্য, যতীন, সুরেশ, ধনঞ্জয়, অরুনাভ, ...” বলে চলেন বরেনবাবু,.. “এদের কারো কথা মনে আছে সুন্দরী? এদের প্রত্যেককে তোমার বিষমেশানো হুলে দগ্ধাতে হয়েছে!”

তন্নিষ্ঠা বরেনবাবুর পুরুষাঙ্গটি মুখ থেকে বার করে “আপনি কেন আমায় এসব কথা বলছেন?” ওঁর ভিজে লিঙ্গমস্তকের ঠিক সামনে এক মিলিমিটার ব্যাবধানে নড়ে ওঠে ওর লাল ঠোঁটদুটি|

-“কেন বলছি?” ওর চিবুক তুলে ধরেন বরেন পাল| ওর তীক্ষ্ণ নাকের সাথে ধাক্কা লেগে তাঁর পুরুষাঙ্গ দুলে ওঠে “তুমি সত্যি কাউকে কোনদিন ভালোবাসতে পেরেছো?”উত্তরে তন্নিষ্ঠা তার গোলাপী জিভটি একটু বার করে লেহন করে সুনিপুনভাবে বরেনবাবুর লিঙ্গমস্তকটি| ব্যাঙ্গের ছাতার মতো মুণ্ডটির ধার বরাবর জিভ খেলিয়ে নিয়ে এসে ওঁর গোলাপী মুত্রছিদ্রটি চাটে, বড় বড় আয়ত্ চোখদুটি মেলে ওঁর পানে তাকিয়ে মুখে নিয়ে আলতো করে চোষে স্পঞ্জের মতো নরম মুণ্ডটি|

-“আঃ!” সুখানুভূতিতে পা কেঁপে ওঠে দন্ডায়মান বরেন পালের| তন্নিষ্ঠার ঠোঁটদুটো অত্যন্ত আকর্ষনীয়ভাবে তাঁর লিঙ্গমস্তকের চারপাশে চাপ খেয়ে ঠেলে ফুলে উঠেছে| অসম্ভব সুন্দর লাগছে ওকে,.. বরেনবাবু আর না পেরে এবার নিচু হয়ে ওকে জরিয়ে ধরে বিছানায় উঠে পড়েন, পাগলের মতো ওকে চুমু খেতে থাকেন, স্তনপীড়ন করতে থাকেন, নিতম্ব দলন করতে থাকেন...

-“আঃ.. উমঃ..” তন্নিষ্ঠা শৃঙ্খলিত শরীরে মোচড় দিতে থাকে.. “প্লিজ আমার বাঁধন খুলে দিন!”

-“না!” বরেনবাবু খসখসে গলায় বলে ওঠেন|

-“প্লিজ..” ওঁর চোখের দিকে তাকিয়ে প্রায় ফিসফিসিয়ে বলে তন্নিষ্ঠা..

ওর চোখে কিছু একটা পড়ে থমকে যান বরেন পাল| তারপর কোনরকমে পকেট থেকে চাবি বার করে ওর হাত খুলে দেন, তারপর ওর পায়ের বাঁধনের গিঁট খুলে ফেলেন... তারপরে একটুও সময় না দিয়ে ওকে জরিয়ে ধরে নিজের শরীরের নিচে ফেলে শুয়ে পড়েন.. ওর শরীরে শরীর ঘষতে ঘষতে একটানে খুলে ফেলেন ওর স্কার্ট, নামিয়ে দেন ওর প্যান্টি...

তন্নিষ্ঠা দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে হ্যাচকা টান মেরে বরেনবাবুর পাজামা পুরো নামিয়ে দেয়, নিজের দুই উরু দিয়ে বেষ্টন করে ওঁর কোমর...

-“অর্ঘ্হ্ঘ..” বরেনবাবু এক ধাক্কায় নিজের পুরুষাঙ্গ আমূল প্রবেশ করান তন্নিষ্ঠার যোনিতে, তন্নিষ্ঠা কঁকিয়ে উঠে সপাটে জরিয়ে ধরে ওঁর গলা তার দুই বাহুলতা দিয়ে ... আগ্রাসী ভাবে চুম্বন করে ওঁর ঠোঁটে, কামর বসায়...

-“উম্ম্ম্হ..” বরেনবাবুও পাল্টা কর্কশ চুমুতে চুমুতে ওর নরম মুখ ছিন্নভিন্ন করতে করতে জোরে জোরে ধাক্কা দিয়ে মন্থন করতে থাকেন ওর শরীর| তন্নিষ্ঠা দেহ মুচড়ে-বেঁকিয়ে সবলে দুই উরুর দ্বারা ওঁর কোমর সাপটে ধরে ওঁর মন্থনের লয়ে মিশে যেতে থাকে|...

তন্নিষ্ঠার দৈহিক আগ্রাসনে নিজেকে হারিয়ে ফেলতে থাকেন বরেনবাবু| ওর আঁটো, সংক্ষিপ্ত যোনির সমস্ত পেশী যেন তাঁর প্রবিষ্ট দন্ডটি নিংড়ে নিংড়ে নিচ্ছে প্রতিবার... তাঁর মুখের নিচে ওর অপরূপ সুন্দর মুখটি ইশত রক্তিমাভ হয়ে উঠেছে,... ওষ্ঠাধর সামান্য স্ফূরিত.... দুটি টানা টানা চোখ ঘোলাটে আকার ধারণ করেছে|.. তিনি আরও জোরে জোরে মন্থন করতে থাকেন দেহের নিচে অষ্টাদশীর নরম, জীবন্ত তনুটি... তাঁর দুই অন্ডকোষের ওর যোনির তলদেশে বারবার আছড়ে পরার থপ থপ শব্দে ও একইসাথে খাটের ক্যাঁচ-ক্যাঁচ শব্দে ঘর মুখর হয়ে উঠেছে| তাঁর গলার দু-পাশে তন্নিষ্ঠার নরম অথচ সবল দুই বাহুর চাপ আরও বাড়ে...-“আঃ.. উম্ম.. অঃ..” তন্নিষ্ঠা গুমরিয়ে, কঁকিয়ে উঠছে বরেনবাবুর প্রতিটি ধাক্কায় ধাক্কায়| সে ওঁর চুল মুঠো করে ধরে ওঁর মুখটি নামিয়ে কর্কশ চুমু খায় ওঁর ঠোঁটের উপর, কামড় দেয় তলার ঠোঁটে নিজের সুন্দর, সাজানো দাঁত বসিয়ে...

-“হ্র্ম্ম...” বাঘের মতো গুমরিয়ে উঠে বরেনবাবু তন্নিষ্ঠার নরম শরীরটি সপাটে জড়িয়ে ধরে এবার ওকে নিয়ে বিছানায় দুবার ওলটপালট খান,, তারপর নিজে চিত্ হয়ে ওকে উপরে রেখে তলা দিয়ে ধাক্কা দিয়ে দিয়ে মন্থন চালাতে থাকেন|

-“উম্মঃ..” তন্নিষ্ঠা এই নতুন দৈহিক স্বাধীনতা পেয়ে বরেনবাবুর বুকের উপর দুই-হাতের তালুতে ভর দিয়ে নিজের উর্ধাঙ্গ ধনুকের মতো বেঁকিয়ে তোলে ওঁর শরীরের উপর| তারপর কোমর নাড়িয়ে নাড়িয়ে নিজের যোনিপ্রবিষ্ট ওঁর পুরুষাঙ্গ দলন করে করে রতিক্রিয়া চালাতে থাকে... তার চুলের একাংশ খুলে এসে পড়েছে তার মুখের উপর, তারপর শ্বাস-প্রশ্বাস ঘন ও দ্রুত|

-“আঃ..” দু-হাত বাড়িয়ে তন্নিষ্ঠার দুই উদ্ধত স্তন ব্লাউজসহ সবলে মুঠো পাকিয়ে তোলেন| সেদুটি পিষতে পিষতে বরেনবাবুর ইচ্ছা করে টপ ছিঁড়ে এমন মোহময়ী দুই স্তন বার করে আনতে... কিন্তু তিনি নিজেকে সংবরণ করেন...

তন্নিষ্ঠা আঁকড়ে ধরে বরেনবাবুর বুকের উপর... ঠোঁট কামড়ে ধরে সে শীত্কার করে উঠে দুটি আয়ত চোখ নিয়ে ওঁর পানে চেয়ে|

কিচ্ছুক্ষন এমন চলার পর বরেনবাবু আবার উল্টে নিজের শরীরের তলায় তন্নিস্থাকে ফেলে দানবীয় শক্তিতে ওর নরম উত্তপ্ত অষ্টাদশী দেহটি বিছানায় ডলে ডলে মন্থন করতে থাকেন নিজের প্রকান্ড শরীর দিয়ে| ওর ঠোঁটদুটি মুখে নিয়ে চুষতে থাকেন, ওর সুডৌল চিবুকে কামড় দিতে থাকেন.. অন্তিম মুহূর্ত আগমনের জোয়ার তলা সুখ ঘনিয়ে আসছে তাঁর সারা দেহ জুরে...

তন্নিষ্ঠা কঁকিয়ে উঠে তার দুই হাত পাঠিয়ে দেয় ওঁর দুই নিতম্বের উপর... সবলে আঁকড়ে ধরে ওঁর নিতম্বের সংকোচন-প্রসারণরত মাংসপেশী... তার দুই ফর্সা উরু আবার বেষ্টন করে নেয় ওঁর কোমর নমনীয় স্বাচ্ছন্দে... তার শরীর কেঁপে উঠছে আসন্ন জোয়ারের অশনিসঙ্কেতে...

-“আহঃ.. ওহঃ..” বরেনবাবুর শরীর ঘুলিয়ে তাঁকে প্রায় অবশ করে দিয়ে চলে আসে অন্তিম সুখপ্রাবল্য... তিনি দাঁতে দাঁত চেপে ধরে রাখার চেষ্টা করেন....

তন্নিষ্ঠার দেহ থরথর করে কেঁপে ওঠে, তার দুই চোখ সটান খুলে উদ্ভাসিত হয় বরেনবাবুর সামনে....

-“অর্ঘ্ঘ্ঘ্ঘ্গ...!” সমস্ত লিঙ্গ দিয়ে অনুভব করেন তিনি তন্নিষ্ঠার যোনির অন্তিম মোচড়.. এবং সবকিছু ভিজে ওঠা নিবিড় উত্তপ্ত আর্দ্রতায়... তিনি দেহের সমস্ত ইচ্ছাশক্তি জড়ো করে নিজের মোচনবেগ প্রশমিত রাখেন...

কিছুক্ষণ পর, একটু শান্ত হলে তিনি আবার শুরু করেন মন্থন| তন্নিষ্ঠা ঠোঁট কামড়ে ওঠে,. তার ক্লান্ত যোনি-পেশী আবার যেন কোন জাদুস্পর্শে সচল হয়ে ওঠে,... -“আঃ..হমমম..” দেবেনবাবুর লিঙ্গ প্রায় অনায়াসে ঢুকতে বেরোতে থাকে তন্নিষ্ঠার এখন-রসসিক্ত, পিচ্ছিল যোনি-অলিন্দের অভ্যন্তরে| প্রথমে ধীরে ধীরে, তারপর ক্রমশঃ চাপ বাড়াতে থাকেন তিনি আবার...

-“অআঃ..” তন্নিষ্ঠা মাথা পেছনে ঠেলে শীত্কার করে ওঠে,... তার দশ-আঙুল আবার আঁকড়ে ধরে বরেনবাবুর নিতম্ব...

-“হমমমম..” গভীর শ্বাস ত্যাগ করে বরেন পাল নিয়মিত, ক্রমবর্ধমান লয়ে মন্থন করে চলেন তাঁর সুন্দরী, অষ্টাদশী বন্দিনীকে, ওর স্ফূরিত ঠোঁটে নিজের ঠোঁট চেপে চুমু খেতে খেতে..

-“ম্ম্ম্হ... উমমমম..” উত্তপ্ত স্বরে গুঙিয়ে ওঠে তন্নিষ্ঠা তাঁর চুম্বনরত ঠোঁটের নিচে, তার যৌনজ্বরে আবার আসছে শরীরে কাঁপন,... দুই উরু দিয়ে সে সবলে চেপে বরেনবাবুর চলমান কোমর... ক্রসের ভঙ্গিতে তাঁর নিতম্বের উপর দুই সুঠাম ফর্সা পা মেলে|

 

-“হমম.. উম্ম..” প্রায় ছুঁড়ির ফলার মতো তীক্ষ্ণ এবং মাপা ধাক্কায় ধাক্কায় তন্নিষ্ঠার আঁটো যোনি-গহ্বরের গভীর অভ্যন্তরে নিজের পুরুষাঙ্গ বিঁধিয়ে দিতে দিতে ওর টানা টানা দুই আয়ত চোখের দিকে তাকান বরেনবাবু|

-“আহঃ!..” প্রবল যৌনসুখে শীত্কার করে তন্নিষ্ঠা নিজেকে আবার হারিয়ে ফেলে... চোখ বুজে ফেলে সে ঘাড় হেলিয়ে দিয়ে, তার তনুটি আবার মুচড়ে উঠে কেঁপে ওঠে থরথর করে| নিজেকে বরেনবাবুর কাছে সমর্পিতা করে আবার কামক্ষরণ করে তন্নিষ্ঠা|...

-“হ্ম্ম্ম্হ..” লিঙ্গের চারপাশ আবার আর্দ্র রসে ভিজে ওঠা অনুভব করেন বরেনবাবু| অনিবার্য সুনামির মতো ছাপিয়ে আসতে থাকা জোয়ার এবার কিছুতেই আর সামলাতে পারেন না বরেনবাবু| আরও কিছুক্ষণ মন্থন চালনোর পর তিনি ঝটিতি দন্ডটি তন্নিষ্ঠার যোনি থেকে টেনে বার করে উঠে আসেন ওর মুখের কাছে... ওর কমলার কোয়ার মতো দুটি ঠোঁটের উপর সিক্ত, ফোলা লিঙ্গমস্তকটি চেপে ধরে ডানহাতে কচলাতে থাকেন দন্ডটি|

-“উন্ম্মঃ!!” তন্নিষ্ঠা গুঙিয়ে উঠে মুখ সরাতে চায় কিন্তু বাঁহাত দিয়ে ওর মাথা যথাস্থানে রাখেন বরেনবাবু|

তন্নিষ্ঠা শরীর মুচড়িয়ে ওঠে আসন্ন অবশ্যম্ভাবী বিস্ফোরণের প্রমাদ গুনতে গুনতে...

-“আঃ.. আঃ হ্হ্খ্খ.” বরেনবাবুর চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসে...

তন্নিষ্ঠা ঠোঁট দুটো ফাঁক করে ওঁর লিঙ্গ মস্তকটি মুখে নিয়ে নেয়...

-“ইহ্খ্খ্খ... আহর্ঘঘ্ঘ্গ....” মুহূর্তের জন্য কচলানো বন্ধ হয় বরেনবাবুর... ছিটকে বেরোয় উত্তপ্ত লাভা...

-“অখখ..” তন্নিষ্ঠা গুঙিয়ে কেশে ওঠে একদলা থকথকে ঘন-উত্তপ্ত বীর্য তার মুখবিবরের উপরিভাগে আলজিভের কাছাকাছি প্রচন্ড গতিবেগে আঘাত করলে,...

______________________________-“আহঃ..” আবার হাত চলে বরেনবাবুর, আবার বিস্ফোরণ,... তাঁর দেহ উগরে দেয় ঘন উত্তপ্ত বীর্য.. তারপর আবার.. তারপর আবার...

তন্নিষ্ঠা বেসামাল হয়ে পড়ে মুখের ভিতর বরেন পালের বীর্যের প্রাবল্য নিয়ে... কেশে ওঠে সে মুখভর্তি তাঁর বীর্য এবং পুরুষাঙ্গের মাথাটি নিয়ে,... তার ফলে ওর দুই কষ দিয়ে দুটি সাদা বীর্যের স্রোত গড়িয়ে পড়ে, এবং দুই ইশত ফাঁক করা ঠোঁটের ফাঁকে সাদা বীর্যের স্তর উথলে ওঠে...

-“উমঃ..” শেষ বীর্যের দলাটি তন্নিষ্ঠার তীক্ষ্ণ নাকের উপর বিসর্জন করেন দেবেনবাবু| সেখান থেকে তা গড়িয়ে এসে ওর আকর্ষনীয় ঠোঁটে পড়ে...

“খেয়ে ফেলো সব সুন্দরী.. ত্বক আরও মসৃন হবে!” হাসেন দেবেনবাবু, কিন্তু শ্বাস-প্রশ্বাসে তাঁর গলা একটু কেঁপে যায়|

তন্নিষ্ঠা তার বড় বড় চোখদুটি মেলে ওঁর পানে চায়... উপায়ান্তর নেই| মুখ সামান্য বিকৃত করে সে শব্দ করে একমুখ ঘন উত্তপ্ত টাটকা বীর্য গলাধঃকরণ করে| তার কন্ঠনালী উপরনীচ হয়...

-“উমমম..” দেবেনবাবু তন্নিষ্ঠার বাঁ কষ বেয়ে গড়িয়ে পড়া বীর্যের স্রোত লিঙ্গমস্তক বুলিয়ে সংগ্রহ করে ওর ঠোঁটের ফাঁকে তা চাপেন|.. তন্নিষ্ঠা বিনা বাক্যব্যায়ে চুষে নেয় সেটুকু| তারপর তিনি একই ভাবে ওর ডান কষ থেকে বীর্য সংগ্রহ করে ওকে খাইয়ে ওর তীক্ষ্ণ নাকের উপর থেকে মোটা বীর্যের দলাটি লিঙ্গমস্তকে মাখন.. মসৃণ গতিতে ওর নাক বেয়ে ঠোঁটে নেমে আসে সেটি|

তন্নিষ্ঠা তার গোলাপী জিভ বার করে বরেনবাবুর গোলাপী লিঙ্গ মুণ্ডটি থেকে সাদা বীর্য চেটে নেয়..

“তোমার সুবিমলের কথা মনে আছে?” হঠাত প্রশ্ন করেন দেবেনবাবু|

তন্নিষ্ঠা এতটা চমকে ওঠে যে ওর দেহটা কেঁপে ওঠে স্বতস্ফুর্তভাবে| আতঙ্ক ও কৌতূহলের দোলাচলে ভর দৃষ্টি নিয়ে সে তাকায় বরেন পালের দিকে|

বরেনবাবুর লিঙ্গটি নরমতর হয়ে এসেছিলো| তিনি সেটি তন্নিষ্ঠার মুখের উপর থেকে তবুও না সরিয়ে ওর ঠোঁট, গাল, চিবুক প্রভৃতি অংশে সেটি দিয়ে চাপর মেরে, ওর নরম ত্বকে ঘষাঘষি করে লঘু খেলা করতে করতে বলেন

“মনে থাকা উচিত রূপসী... খুব রিসেন্ট ঘটনা!”

-“সুবিমলের সাথে আমার ব্রেকাপ হয়ে গেছে দু-মাস হলো” তন্নিষ্ঠা অস্বস্তিতে মুখে সরিয়ে নেয়| একপাশে ঘাড় কাত করে|

-“হমমমম” দেবেনবাবু এবার নেমে এসে তন্নিষ্ঠার নরম শরীরের উপর আরাম করে উপুড় হয়ে শোন দেহের ভার ছেড়ে|দুই কনুই ওর কাঁধের দুপাশে রেখে বিছানায় ভর দেন| ডানহাতে ওর মাথার চুলে হাত বুলাতে বুলাতে বলেন:

“ব্রেকাপ হয়েছিল না তুমি জোর করে ছিঁড়ে বেরিয়ে এসেছিলে সুন্দরী?”-“কি আসে যায় আপনার তাতে?” তন্নিষ্ঠা ওঁর দিকে মুখ ফিরিয়ে গলায় ঝাঁঝ নিয়ে বলে ওঠে|

-“হাহা..” মৃদু হাসেন বরেনবাবু “শুনেছি তুমি ব্রেকাপ করার পর ও এক সপ্তাহ নাকি জল ছাড়া কিছু ছোঁয়নি আর নিজের ঘর থেকে বেরোয়ও নি?”

-“জানি| অমন ন্যাকামো অনেকেই করে..” তন্নিষ্ঠার গলার স্বর একটু চাপা এখন|

-“তাও শুনেছো? বাঃ বেশ| তা সুবিমলের মৃত্যুর খবরটা শুনেছো নিশ্চয়ই?”

তন্নিষ্ঠা চোখ নামায়| উপর নিচে মাথা নাড়ে নিঃশব্দে| তারপর একই স্বরে বলে ওঠে “পুলিশ বলেছে বাইক accident. এর জন্যও কি আমায় দায়ী করতে চান? আর আপনার এত..”

-“তুমি শিওর বাইক accident?”

তন্নিষ্ঠা বিহ্বল চোখে চায় “আমি অন্যরকম ভাবতেই বা যাবো কেন?”

-“হম..” দেবেনবাবু ওর চিবুকে চুমু খান “সুন্দরী তোমার কি কোনো ধারণা আছে যখন ভালোবাসার নামে তুমি তোমার সৌন্দর্য্যের বিষাক্ত দংশনে ক্ষতবিক্ষত করার পর একটা ব্যবহৃত চ্যুইং গামের মতো ফেলে দিয়ে চলে গিয়েছিলে সুবিমলকে তখন কিভাবে তার দিন কেটেছিলো? কোন জ্বালায় এক তরতাজা যুবকের তার নিজের এখনো সুবিস্তৃত জীবনকে অর্থহীন মনে হয় এতটা যে সে খাওয়াদাওয়ার মতো প্রাথমিক কাজগুলোকেও অবজ্ঞা করতে শুরু করে, দিনে দিনে তিলে তিলে নিজেকে কষ্ট দিয়ে দিয়ে শেষপর্যন্ত নিবিড় আত্মগ্লানিতে সে আত্মহত্যা করে?” গমগম করে দেবেন পালের গলা ঘরের মধ্যে...

-“আত্মহত্যা????” তন্নিষ্ঠা নড়েচড়ে উঠে দেবেনবাবুর দেহের নিচে “কি বলছেন তা কি আপনার মাথা খারাপ হয়েছে নাকি? আপনি কি করে জানলেন? টি... টি.ভি তে ..”

-“আমি কি করে জানলাম ?” দেবেনবাবু এবার সরাসরি তন্নিষ্ঠার দিকে তাকান, তাঁর গলায় আর বিন্দুমাত্র কৌতুক নেই: “আমি কি করে জানলাম? তার কারণ হচ্ছে আমি সুবিমল পালের বাবা! দেবেন্দ্রনাথ পাল! এবং আমাকে দিনের পর দিন ওর তিলে তিলে ক্ষয়ে যাওয়া দেখতে হয়েছে..... আর..” দেবেনবাবুর গলা হঠাৎই কেঁপে ওঠে “আর নিজের চোখে আমাকে আমার ছেলের মৃত্যু দেখতে হয়েছে! আমার এই দুটো বাহুর মধ্যে ও শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছে!”

তন্নিষ্ঠার মুখটা নিমেষে সাদা হয়ে যায়| যেন ভূত দেখেছে সে| মুখটা ইশত হাঁ করে সে কিছু বলতে যায়, কিন্তু অস্ফুট গোঙানি ছাড়া কিছু বেরিয়ে আসে না| চোখদুটো বিস্ফারিত তার...

বেশ কয়েক মিনিট বাদে গলা দিয়ে শব্দ বের করতে পারে তন্নিষ্ঠা..

“আপনি... আপনি নিশ্চয় ঠা... ঠাট্টা করছেন.!..”

-“আমাকে দেখে তোমার মনে হচ্ছে যে আমি ঠাট্টা করছি? মিথ্যা বলছি?” দেবেন পালের মুখ পাথরের মতো শক্ত| দুটি চোখ আটকানো তন্নিষ্ঠার দুটি চোখে...তন্নিষ্ঠা আবার স্বর হারিয়ে ফেলে...

“মনে হচ্ছে?” প্রায় গর্জিয়ে ওঠেন দেবেন পাল|

তন্নিষ্ঠা কোনরকমে দু-দিকে মাথা মাথা নাড়ে... দেবেনবাবু বুঝতে পারেন ওর নরম বুকে চেপে বসা তাঁর বুক দিয়ে ওর হৃত্পিন্ডের এলোপাথাড়ি দৌড়...

অনেকক্ষণ কেটে যায় এক পাথুরে নিঃস্তব্ধতার মধ্যে দিয়ে|

-“কি... কিন্তু টি.ভি তে ... কাগজে.. তবে..” ঘরের নিঃস্তব্ধতায় আঁচর কেটে ওঠে তন্নিষ্ঠার খসখসে, প্রাণহীন কন্ঠ|

-“সুবিমলের আত্মহত্যাকে দুর্ঘটনা বলে সংবাদ ও অনান্য মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে| কেউ জানেনা আসল খবর| তা দিনের আলো দেখার আগেই দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে ধামাচাপা দিয়ে আমার ছেলের মৃত্যুকে তুচ্ছ দুর্ঘটনার রূপ দিয়ে সবার কাছে পরিবেশন করা হয়েছে পুলিশ এবং ডাক্তারদের মোটা টাকার ঘুষ খাইয়ে!” প্রত্যেকটি শব্দ ধীরে ধীরে, স্পষ্ট করে, চিবিয়ে চিবিয়ে বলেন দেবেনবাবু, তন্নিষ্ঠার চোখে সর্বক্ষণ চোখ রেখে|

তন্নিষ্ঠা চোখের পাতা ফেলতেও সাহস করে না|

“এই কাজ, এই জঘন্য, ইতর কাজ কে করেছে জানো?”

দু-দিকে মাথা নাড়ে তন্নিষ্ঠা|

“গ্যেস করো.. ইনি একজন প্রচন্ড ধনী ও প্রভাবশালী ব্যক্তি!”

তন্নিষ্ঠা চুপ করে থাকে|

-“ঠিক আছে, আর একটা হিন্টস দিছি! ইনি তোমার জন্মদাতা!” শেষের কথাগুলো জোরে জোরে বলেন দেবেনবাবু|

-“বা.. বাবা?” তন্নিষ্ঠা বলার মাঝে ঢোক গেলে| তার মনে হয় একটি শক্ত মাটির ডেলা যেন তার গলা দিয়ে নামে...

-“হ্যাঁ, বা.. বাবা” দেবেনবাবু ওকে নকল করে বলেন| “ইনি সবকিছু করেছেন তোমার মান রক্ষা করতে! পরিবারের মান রক্ষা করতে| সুবিমল একটি সুইসাইড নোট লিখেছিলো| তাতে ও তোমাদের ব্রেকাপকে দায়ী করে গেছিলো আত্মহত্যার জন্য| সেটি তিনি আমার সৌজন্যের সুযোগ নিয়ে চিরতরে হস্তক্ষেপ করেছেন এবং তারপর এই নোংরা কাজটি করেছেন!”

-“কি কিন্তু, আপনার কাছে তো কোনো প্রমান নেই...”

-“হাহা.. হাসালে..” দেবেনবাবু অনেকক্ষণ পর আবার হেসে ওঠেন, তারপর তন্নিষ্ঠার ঠোঁটে চুমু খেয়ে বলেন “তুমি বুদ্ধিমতি| এইটুকু বুঝতে পারছনা যদি আমার কাছে প্রমানই থাকতো প্রথম থেকে, তাহলে এত ঝামেলা করে তোমায় অপহরণ করতে হত?”তন্নিষ্ঠা চোখ নামিয়ে নেয়|

“কিন্তু সমস্ত প্রমান, তোমার বাপির কাছে আছে| ইন্ক্লিউডিং ওই চিঠি| এবং তা আমার হবে| এবং তুমি আর আমি মিলে তোমার বাপ্পিকে বুঝিয়ে সুঝিয়ে তা সম্ভব করবো বুঝলে খুকুমণি?” তিনি তন্নিষ্ঠার ঠোঁটে, গালে ও চিবুকে চুমু খান তিনটে|

“কিন্তু যদি বাপ্পিকে রাজি করানো সম্ভব না হয়?” তন্নিষ্ঠা শুষ্ক কন্ঠে বলে ওঠে|

-“আঃ.. এখনি এত খারাপ কথা ভাবছো কেন রূপসী?” তিনি ওর মাথায় হাত বুলিয়ে হেসে বলেন “তুমি তো আছ আমার হাতের মুঠোয়..” তিনি তন্নিষ্ঠার চুল থেকে হাত নামিয়ে আলতো করে ওর নরম ফর্সা গলা টিপে ধরেন|

বুকটা ধক করে ওঠে তন্নিষ্ঠার...

“হাহা, ভয় নেই,.. আমার ছেলে তোমার প্রেম প্রত্যাখ্যানে আত্মহত্যা করেছে বলে আমি তোমায় মেরে ফেলতে চাই না...হাহা কোনো ক্ষতিও করবো না.... যা তোমার অলরেডি হয়নি” এক চোখ টেপেন দেবেনবাবু “আমি অতো নৃশংস কিংবা পাষন্ড নই তোমার বাবার মতো!”

তন্নিষ্ঠা ভারী শ্বাস ছারে|

“আমার প্ল্যান আরও অনেক সুন্দর আর নিখুঁত|”

-“কি তা?”

“ক্রমশ প্রকাশ্য|” মুচকি হেসে বলেন দেবেনবাবু “তবে এটুকু বলতে পারি সুবিমলের কি হয়েছিল তা বিশ্বের সকলে সঠিক জানবে, আর ওর কথা সবাই মনে রাখবে!”

তন্নিষ্ঠা কিছুক্ষণ চুপ করে থাকে| তার শ্বাস-প্রশ্বাস যেন কিছুতেই স্বাভাবিক হবার নয়| সে এবার বলে ওঠে-

“কিন্তু আপনি কি করে জানলেন যে বাবার এই কীর্তির কথা আমি আগে থেকেই জানিনা? আমিই সেই বুদ্ধি বাবাকে দিই নি?”

দেবেনবাবু আবার মুচকি হাসেন “আমি জানতাম না রূপসী| কিন্তু আমি বলাতে তোমার প্রতিক্রিয়া দেখেই বুঝলাম| আর যাই হও... তুমি অতো বড় অভিনেত্রীও নও!”

তন্নিষ্ঠা দীর্ঘশ্বাস ফেলে|

“আর তোমার এই অতি সুন্দর অবয়বের তলায় নিষ্ঠুর হৃদয়টাকে কিছু সুনিপুণ শিক্ষা দেবার ভালো ভালো প্ল্যানও আমি করেছি.. উম্..” তন্নিষ্ঠার মুখটায় খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে চুমু খেতে শুরু করেন দেবেনবাবু| ওকে চুমু খেতে খেতে ওর নগ্ন উরুর উপর লেপ্টে থাকা তাঁর নগ্ন পুরুষাঙ্গ আবার অর্ধশক্ত হয়ে ওঠে... তিনি নিজের শরীর ওর উপর ঘষতে শুরু করেন|

“প্লিইজ এখন আর না...” তন্নিষ্ঠা মিনতি করে ওঠে| “আমার এখন.... ভালো লাগছেনা!”

তিনি চুম্বন থামিয়ে ওর সুন্দর মুখটির দিকে ভালো করে তাকান| ওর দুটি টানা টানা চোখ সায়রের মতো টলমল করছে| তিনি তাকিয়ে থাকা কালীনই একফোঁটা জল ওর বাঁ চোখ থেকে নির্গত হয়ে গড়িয়ে পড়ে...

তিনি তন্নিষ্ঠার উপর থেকে উঠে বিছানায় অন্য দিকে মুখ করে বসেন| ভারী, গম্ভীর কন্ঠে বলে ওঠেন

“তুমি নিচে যাও... নিজের ঘরে| সন্ধ্যাকে বলে দাও আমি ডাকছি|”

তন্নিষ্ঠা ধীরে উঠে বসে| নিজের স্কার্ট পরে| একবার দেবেনবাবুর দিকে ফিরে তাকায়| জানলার আলোর সামনে তাঁর বসে থাকা আকারটি কালো সিল্যুয়েট-এর মতো লাগছে| সে নিঃশব্দে নিষ্ক্রান্ত হয় ঘর থেকে|

 

banglablogboss.webnode.com
Back

Search site

যৌন শিক্ষা ও বাংলা চটি গল্প @ Copyright