অঞ্জলী দিদি (পর্ব ৬)

01/01/2008 02:19

(পনের বছর পরের কথা)

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে ইউএসএ প্রবাসী বাংলাভাষী লোকজন একটা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে। এপার বাংলা ওপার বাংলার নামী দামী শিল্পী, কলাকুশলী তারকাগণ আমন্ত্রিত হয়েছেন। অমিত সাধারণত এসবে অংশগ্রহণ করে না। আয়োজকরা গেলে অর্থ কড়ি ডোনেশন দেয়। এবছর কেন জানি তার অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করতে ইচ্ছা করলো।

পনের বছর আগে এমআইটিতে পড়তে এসে আর দেশে ফেরা হয়নি। অকালে মা-বাবা হারানোর পর পৃথিবীতে দুজন মানুষকে সে ভালবেসেছিলো। একজন ঠাকুরমা আর একজন অঞ্জলী। দুজনই তাকে কষ্ট দিয়েছে, আঘাত দিয়েছে। তাই পড়াশুনা শেষ হলেও আর দেশে ফিরে যায়নি। বুক ভরা অভিমান চাপা দিয়ে রয়ে গেছে এখানেই। অঞ্জলীর সাথে শুভ্যেন্দুর বিয়ের কথায় অমিত ঠাকুরমার উপর এতটাই অভিমান করেছিল যে, এরপর যে কদিন দেশে ছিল তার সাথে কথা বলেনি। ঠাকুরমাও তার সামনে আসেননি। আর অঞ্জলী সেই যে বাড়ি ছেড়েছিল আর কোনদিন তার দেখা পায়নি অমিত। গুমড়ে গুমড়ে কেঁদেছে অমিত। রাতের আধারে বালিশ ভিজেছে তার। সেই অভিমান থেকেই এখানে আসার পর দেশের সাথে কোন যোগাযোগই রাখতো না সে। কারো ফোন ধরতো না, কাউকে ফোন করতো না। এভাবেই কেটে গেল পনেরটি বছর। পড়াশুনায় ভালছিল বলে সেটেল্ড হতে সময় লাগেনি। আর ঠাকুরমা মনে কষ্ট দিলেও সহায় সম্পদ থেকে তাকে বঞ্চিত করেন নি। ফলে প্রতিষ্ঠা পেতে তেমন বেগও পায় নি। এখানকার বাংগালী কমিউনিটিতে তার যথেষ্ট সমাদর আছে যদিও সে নিভৃতচারী। কথা বরাবরাই কম বলতো । এখন আরো কম বলে। কাজ করে এক মনে। এম আই টিতেই রিসার্চ ফেলো হিসাবে কাজ করছে। এক ডেনিস বিজ্ঞানীর সাথে মিলে বিকল্প জ্বালানী আবিষ্কারের চেষ্টা করছে ।

আজকের এ অনুষ্ঠানে এসে তার বেশ ভালই লাগছিল। অচেনা অল্পচেনা মানুষেরাও কেমন করে জানি মুহুর্তেই আপন হয়ে যাচ্ছে। মূল অনুষ্ঠান শুরু করার আগে আয়োজকদের পক্ষ থেকে নানা ঘোষণা দেয়া হচ্ছে, পরিচিতি তুলে ধরা হচ্ছে, ডোনারদের ধন্যবাদ দেবার পাশাপাশি তাদের শুভেচ্ছা বক্তব্যও আহবান করা হচেছ। এক সময় অবাক হয়ে লক্ষ্য করলো স্পীকারে তার নাম ঘোষণা হচেছ। " এ বারে আপনাদের সামনে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন এম আইটির রিসার্চ ফেলো প্রফেসর ড. অমিতাভ রায় চৌধুরী।" অন্যমনস্ক ছিল বলে প্রথমে খেয়াল করেনি। বার দুই ঘোষণার পর সে সচকিত হলো এবং খুব লাজুক ভংগীতে মঞ্চের দিকে হেটে গেল। প্রথমেই কপালে হাত তুলে নমস্কার জানাল খাটিঁ বাংগালী কায়দায়। তারপর সকলের সুসাস্থ্য আর সুন্দর জীবন কামনা করে, আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে নেমে এল মঞ্চ থেকে। সে তার আসনে ফিরে আসার সাথেই সাথেই ধুতি পাঞ্জাবী পরা এক সুদর্শন ভদ্রলোক তার সামনে এসে দাড়িয়ে বলল, "নমস্কার স্যার কেমন আছেন?'

অমিত হকচকিয়ে গেল। লোকটাকে খুব চেনা মনে হচ্ছে অথচ মনে করতে পারছে না। তার অবস্থা বুঝতে পেরেই যেন লোকটি আবার বলে উঠলো, "স্যার আমাকে চিনতে পারছেন না? আমি শুভ্যেন্দু মুখার্জী। আপনাদের রায় ইলেক্ট্রনিক্স্ এ কাজ করেছি আমি।" অমিত চিনতে পারলো। আর চিনতে পারার সাথে সাথেই তার মূখটা মলিন হয়ে গেল। এই তো সেই লোক যার জন্য তার জীবনটা তছনছ হয়ে গেছে। পনেরটা বছর ধরে মনের দিক থেকে মৃত একজন মানুষ হয়ে আছে অমিত।

অমিতের বয়স এখন তেত্রিশ। জিম করা শরীর। মূখ ভর্তি ছোট ছোট কাল দাড়ি। উজ্জল গৌর বর্ণের কারনে শ্বেতাংগদের থেকে সহজে আলাদা করা যায় না। শুধু তার গভীর কালো দুটি চো্খই পার্থক্য গড়ে দেয়। এ চোখের মায়ায় কত শত নীল নয়না যে ধরা পড়েছে তার কোন হিসাব নেই। কিন্তু অমিত ফিরেও তাকায় নি। সে তো জীবনে একজনকেই ভালবেসেছে। সেখানে অন্য কাউকে স্থান দেবার সুযোগতো নেই। আর ভালবাসাহীন শরীর! ঠাকুরমার কথা তার মনে আছে। হৃদয়ের সাথে সম্পর্কহীন শরীর বেশ্যার। তো তার বেশ্যার শরীর ভোগ করার ইচ্ছা জাগেনি। গত পনের বছরে সে কোন নারীর শরীর স্পর্শ করেনি।

 

 

 

এখানে শুভ্যেন্দুকে দেখেই তার মনে হল নিশ্চই অঞ্জলীও আছে। তার মনটা বিতৃষ্ঞায় ভরে গেল। এত ক্ষণের ভাল লাগা এখন বিরক্তি আর বেদনায় ভরে উঠলো। এসব বিশ্বাসঘাতকদের সাথে দেখা না হওয়াই ভাল ছিল। সে উঠে দাড়ালো । বেরিয়ে যাবার জন্য হাটা দিল। শুভ্যেন্দু মনে হয় বুঝতে পেরেছে তার মনের কথা। তাই কিছু না বলে সেও ফলো করলো। ভিড়ের একদম কিনারায় আসতেই পিছন থেকে হাত চেপে ধরলো শুভ্যেন্দু। "স্যার, এক মিনিট" বলেই হাত ইশারায় কাকে যেন ডাকলো। মুহুর্ত পড়েই একজন শাড়ি পরা সুন্দরী মহিলা এসে দাড়াল তার সামনে। সিথিতেঁ মোটা করে দেয়া সিঁদুর। "স্যার, আমার স্ত্রী।" অমিত মাথা নীচু করে দাড়িয়ে আছে। তার মাথা তুলতে ইচ্ছা করছে না। মাথা তুলে কোন বিশ্বাসঘাতকের মূখদর্শন করতে ইচ্ছে করছে না। "নমস্কার" অমিত শুভ্যেন্দুর স্ত্রীর গলা শুনলো। ঝটিতি চোখ তুলে তাকালো সে। কে এই নারী? এ তো অঞ্জলী নয়!!!"

"নমস্কার" অমিতের প্রত্যোত্তর যেন অনেক অনেক দূর থেকে ভেসে এল। তার চোখের হতভম্ব ভাবটি একদম প্রকট। সে খানে অসংখ্য জিজ্ঞাসা। শুভ্যেন্দু বুঝতে পারছে অমিতের মনের অবস্থা। তাই সরাসরিই বলল, "স্যার আমি জানি আপনি খুব অবাক হয়েছেন। এও জানি আপনি দেশের কোন খবরই রাখেন না। দয়া করে আসুন না একবার আমার ওখানে। চা খেতে খেতে গল্প করা যাবেক্ষণ।"

অমিত কি করবে ভেবে পাচ্ছিল না। সে আমতা আমতা করছে । তার এক মন বলছে যাই। সব কিছু জানা দরকার। আরেক মন বলছে না, যাব না। মৃত অতীত ঘেটে কি আর হবে?

"আপনাকে আসতে হবে ঠাকুরপো," এবারে কথা বলছে শুভ্যেন্দুর স্ত্রী, "ওর মূখে আপনার , আপনাদের কোম্পানীর এত কথা শুনেছি যে আপনার সাথে গল্প করার জন্য মূখিয়ে আছি আমি।"

সে এত আন্তরিকতার সাথে ঠাকুরপো শব্দটা উচ্চারণ করেছে, সাথে সাথে অমিতের মঞ্জু বউদির কথা মনে পড়ে গেল। তার পরিবারের সকলের কথা মনে পড়লো। ঠাকুরমা, জেঠুরা, পিসিমা, রোহিত দা, অঞ্জলী। তার ভিতরটা কেমন জানি করতে লাগলো। তার ইচ্ছা হলো এখুনি শুভ্যেন্দুর হাত চেপে ধরে বলে "আমাকে সব কিছু জানাও।" কিন্তু বয়স আর শিক্ষা তাকে ধৈর্য ধরতে শিখিয়েছে। সে নিজেকে সংযত করলো।

শুভ্যেন্দু আবার কথা বললো, "আসছেন তো স্যার?"

-এমন স্যার স্যার করলে কেমন করে যাই বলতো শুভদা। আমি তোমার কত বছরের ছোট সে খেয়াল কি আছে?

শুভ্যেন্দু চেষ্টা করলো স্যার বাদ দিতে কিন্তু পারলো না। অনেক বছরের অভ্যাস। চাকুরী করা মানুষরা স্যার বলেই অভ্যস্থ। অমিত হেসে ফেললো। "ঠিক আছে শুভদা, নেক্সট উইকএন্ডে তোমার ওখানে যাব আমি। তবে সরষে ইলিশ খাওয়াতে হবে কিন্তু।"

-সেটা আমার উপর ছেড়ে দাও না ঠাকুরপো! আমি বাংলাদেশের মেয়ে। আমি জানি কি করতে হবে।"

-ঠিক আছে বউদি তোমরা অনুষ্ঠান দেখ আমি আর বসবো না। উইক এন্ডএ দেখা হবে।

উইক এন্ডে অমিত শুভ্যেন্দুর বাসায় এল বাংলাদেশের 'রস' এর মিষ্টি, কয়েক বাক্স চকলেট আর আইসক্রীম নিয়ে। ওদের ছোট একটা ছেলে আছে তার জন্য নানান ধরণের খেলনা কিনে নিয়ে গেল। ইচ্ছা ছিল সরলা বউদির (শুভ্যেন্দুর স্ত্রী) জন্য দুটো শাড়ি নিযে যায়। কিন্তু এটা কেনার মত কোন অভিজ্ঞতা না থাকায় সে দিকে গেল না। খেলনা কিনতেও তাকে মার্গারেট এর সাহায্য নিতে হয়েছে। মার্গারেট মেক্সিকান মেয়ে। তার ফ্লাটে অনেক বছর ধরে ভাড়া থাকে এবং তাকে রান্না-বান্নাসহ যাবতীয় কাজে সহায়তা করে। বিদেশে কাজের লোক পাওয়া যায় না এটা সত্য নয়। টাকা দিলে বাঘের চোখ মিলে এটা শুধু আমেরিকাতেই সম্ভব। অমিত ভাল পয়সা দেয়। ফলে মার্গারেটকে যখন যে কাজে ডাকে সে কাজেই পাওয়া যায়। প্রথম প্রথম সেডিউস করতে চেষ্টা করেছে। না পেরে বলেছে, "Come on Amit, you don need any extra dollar, let us enjoy each other." মার্গারেট ধারণা করেছিল পয়সা ব্যয় করতে হবে মনে করে অমিত তাকে এড়িয়ে যাচ্ছে। সে তো আর জানতো না অমিত অঞ্জলী নামক এক বিশ্বাসঘাতিনীর বিশ্বাস ভংগের বেদনায় কাতর হয়ে আছে। অমিত শুধু বলেছে " Oh magi honey don be silly, just be my friend not girlfriend." মার্গারেট তখন থেকে তাকে সেইন্ট বলে।

উইক এন্ডের কেনা কাটা করার সময় মার্গারেট অমিতের চোখে অস্থিরতা লক্ষ্য করেছে। জানতে চেয়েছে কার জন্য এসব কেনা কাটা। অমিত জবাব দেয়নি। মার্গারেটের কেনা উপহার গুলি সত্যি খুব ভাল হয়েছে। তবে মিষ্টিটা সে চিনতো না। এটা অমিতের নিজের কাজ।

অসম্ভব ভাল রান্না করেন সরলা বউদি। একদম খাটি বাংগালী রান্না। কতদিন যে অমিত খায়নি। ভরপেট খেয়ে তার আলস্য ধরে গেল। সোফায় আধ শোয়া হয়ে শুনলো দেশের সব কাহিনী।

সবগুলিই দু:সংবাদ। অমিত কোন কথা না বলে শুনে যাচেছ। ঠাকুরমা মারা গেছেন অমিত চলে আসার এক বছরের মাথায়। যত দিন জীবিত ছিলেন অমিতের প্রতি মুহুর্তের খবর রাখতেন তিনি। কিন্তু নিজে যোগাযোগ করতেন না বা কাউকে যোগাযোগ করতে দিতেন না। তার বক্তব্য ছিল যে জেদটা আজ অমিতকে চালাচ্ছে সেটা মরে গেলে সে নিজের পায়ে দাড়াতে পারবে না। শক্ত হওয়ার জন্য কষ্টটা প্রয়োজন। এমন কি তার মৃত্যু সংবাদটাও না জানাতে বলে গিয়েছিলেন পিছে আপনি পড়াশুনার ব্যাঘাত ঘটিয়ে ফিরে যান।

আপনার জেঠুরাও সবাই মারা গেছেন। রায় গ্রুপ বলে এখন আর কিছু নেই। শরীকরা সবাই যার যার মত আলাদা হয়ে গেছে। শুধু রোহিত স্যার রায় হোল্ডিংস আর রায় রিয়েল এস্টেট দুটি ধরে রেখেছেন। পুরনো বাড়িটা যেটা পিসিমাকে দেয়া হয়েছিল সেখানে আর কেউ থাকে না। পিসিমা চলে গেছেন কাশীতে। সেখানেই স্থায়ী ভাবে আস্তনা গেড়েছেন তিনি।"

অমিত কোন কথা বলছে না। কিন্তু শুনতে শুনতে সোফার হাতলে আংগুল দেবে যাচ্ছে। পাথরের মত শক্ত হয়ে আছে মুখ। চোখ ঠিকরে আগুন বেরোচ্ছে। অমিত অপেক্ষা করছে অঞ্জলীর কথা শুনার জন্য। কিন্তু শুভ্যেন্দু সে দিকে যাচ্ছে না। কথার মাঝখানে দ্বিতীয়বার চা দিল সরলা। তার পর শুভ্যেন্দুকে থামিয়ে দিল। "তুমি কি গো, দেখতে পাচ্ছ না ঠাকুর পোর কষ্ট হচ্ছে?" সরলার কথা শেষ হবার আগেই অমিত ভেংগে গেল। নিজেকে আর ধরে রাখতে পারলো না। দু চোখ বেয়ে গড়িয়ে নামল অশ্রু ধারা। মাথার চুল ছিড়তে আরম্ভ করলো। অলক্ষুণে জিদের বশে কি সর্বনাশটাই না সে করেছে। দ্রুত দুই পাশ থেকে জড়িয়ে ধরলো সরলা আর শুভ্যেন্দু। কান্নার বেগটা সামলে নিতে সময় দিল। একটু থিতু হয়ে এলে স্বামীর সামনেই নিজের আঁচল দিয়ে চোখ মুছিয়ে দিল সরলা। "এবার চায়ে একটা চুমুক দাও দিখিনি। কথা পরে হবেক্ষণ।"

চা শেষ হলে শুভ্যেন্দু আবার শুরু করলো, "আপনাদের বাড়িটা এখন অনাথ আশ্রম হিসাবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। আপনার ঠাকুরমার নামে এটা প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। পিসিমা বাড়িটা দান করেছেন। আামি ঠাকুরমার দেয়া শেয়ারটা নিইনি। আশ্রমে দান করে দিয়েছি। অঞ্জলীও তাই। শরীকরা আলাদা আলাদা হবার পর রোহিত স্যার তার নতুন ফ্লাটে উঠে গেছেন।"

অমিতের ধৈর্য প্রায় শেষ সীমায় পৌছাল। সে অঞ্জলীর কথা শুনতে চাইছে। তবে তার মূখ দেখে কিছু বুঝার উপায় নেই।

শুভ্যেন্দু আবার শুরু করলো," অনাথ আশ্রমটা এখন চালাচেছ অঞ্জলী। আপনি জানেন তার সাথে আমার বিয়ের কথা হয়েছিল।" অমিত নড়েচড়ে বসে সরলা বউদির দিকে তাকাল। সরলার মূখে মৃদু হাসি। "ভয় নেই ঠাকুরপো, আমি সব জানি।"

শুভ্যেন্দু বলে চলেছে, "ঠাকুরমার ঘোষণার পর থেকে অঞ্জলীকে কোথাও খুজে পাওয়া যাচ্ছিল না। সে তার নিজের মত আত্মগোপন করে ছিল। আপনি চলে আসার পর সে একদিন আমাকে ফোন করে জানাল যে তার পক্ষে আমাকে বিয়ে করা সম্ভব নয়। সে একজনের বাগদত্তা। ঠাকুরমা না জেনেই বিয়ের ঘোষণা দিয়েছেন। তাকে আমি পছন্দ করতাম। তবে কোন প্রেম ছিল না। "

"এই তুমি লাল হয়ে যাচ্ছ কেন? প্রেম থাকলেও কি আমি মাইন্ড করবো?" সরলা বউদি ফোড়ন কাটলেন।

"ঠাকুরমার মৃত্যুর পর অঞ্জলী চাকুরী ছেড়ে দেয়। সে চাকুরী ছাড়ার পর আমারও আর ভাল লাগছিল না। কারন সে ছিল আইডিয়ালিস্ট আমি সেটাকে বাস্তবে রূপায়ন করতাম। সে চলে যাবার পর আমিও চাকুরী ছেড়ে দেই।"

"বুঝলে ঠাকুরপো তারপরও বলছে প্রেম ছিল না। বল তোমার একতরফা প্রেম ছিল, তিনি তোমাকে পাত্তা দেননি।"

"এটা কিন্তু বেশী হয়ে যাচ্ছে। অমিত স্যারের সামনে তুমি আমাকে অপমান করতে পারো না।"

"তার বাগদত্তার সাথে শেষ পর্যন্ত অঞ্জলীর বিয়ে হয়নি?" এই প্রথম কথা বললো অমিত।

"আই এম সরি, আমি এর বেশী কিছু জানিনা।" শুভ্যেন্দু শেষ করলো।

কথা বলতে বলতে বেশ রাত হয়ে গেল। অমিতের মন ঘন বিষণ্ণতায় ভরা। সে ফেরার জন্য প্রস্তুত হলো। জানা ছিলনা তার জীবনে এত বড় সর্বনাশ হয়ে গেছে। না জানলেই ভাল হতো। দিব্যি মানিয়ে নিয়েছিল নতুন জীবনে। এখন খুব কষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে ঠাকুরমা আর অঞ্জলী দুজনের কথাই মনে পড়ছে বেশী। সে কার বাগদত্তা ছিল? তথ্যটা কার কাছ থেকে জানা যায়? নিজে থেকে দেশে ফোন করবে না সে। রোহিত দা, মঞ্জূ বৌদি একবারও তার খোজ করলো না?

অমিত বেরোতে চাইলে সরল বৌদি বাঁধা দিলেন। "আজ আর গিয়ে কাজ নেই ঠাকুর পো। মনের এমন অবস্থা নিযে লং ড্রাইভ ঠিক হবে না।''

-না না বৌদি, আমি ঠিক আছি।

-ঠিক আছি বললেই তো হয় না। আমি ভালই বুঝতে পারছি কতটা ঠিক আছ। আজ আমাদের সাথে থাকো কাল চলে যাবেক্ষণ।

বৌদির কন্ঠটা এত আন্তরিক আর মায়াভরা যে অমিত ফেলতে পারলো না। দুটো মাত্র ঘর। একটাতে স্বামী-স্ত্রী থাকে আর বসার ঘরের এক কোণে বাচ্চাটার জন্য কট ফেলা আছে। অমিত এদিক ওদিক তাকিয়ে বিষয়টা বুঝার চেষ্টা করছে। বৌদি আবার নীরবতা ভাংলেন, "তোমার শুভদার আজ নাইট শিফট। আর কিছুক্ষণ পরেই ও বেরিয়ে যাবে। খোকন আমার সাথে চলে গেলে তোমার তেমন অসুবিধা হবে না। একদিন এ গরীব বউদির জন্য না হয় একটু কষ্ঠ করলে।"

তর্কে যাবার প্রবৃত্তি হলো না। গভীর একটা ঘুম দরকার তার। একা মানুষ যেখানে রাত সেখানে কাত। নিজের ফ্লাট থাকলেও সে কখনও বিলাসী জীবন যাপন করতো না, এখনও করে না। রাতের খাবার শেষে শুভ বেরিয়ে গেল। খোকন চলে গেল তার মায়ের কাছে। অমিতও শুয়ে পড়লো। কিন্তু ঘুম আসছে না। ঘন্টাখানেক পর শুনতে পেল কেউ তাকে নাম ধরে ডাকছে। "অমিত ঠাকুরপো, ঘুমিয়েছ?" মাথার চুলে মায়াময় হাতের ছোয়া। ঘুম ভাংগানোর জন্য ঠাকুরমা এমন করতেন। কখনও আস্মিক ডাক দিয়ে ঘুম ভাংগাতেন না। আস্তে আস্তে মাথায় হাত বুলিয়ে ঘুমের ঘোন কাটিয়ে দিতেন। প্রথম ডাকেই জবাব দিল অমিত,"বউদি কিছু বলবে?' সে ধড়মড় করে উঠে বসলো।

-আহা ব্যস্ত হয়ো না, আমার ঘুম আসছে না। ভাবছিলাম তোমার সাথে গল্প করবো।

-আমারও ঘুম আসছে না বউদি। এস বসো।" অমিত বেড সাইড ল্যাম্পটা জ্বেলে দিলো।

আলো জ্বলতেই সরলা বউদির দিকে তাকিয়ে মুগ্ধ হয়ে গেল অমিত। একটা খুব মসৃণ সাদা জর্জেট শাড়ী পড়েছে। লাল ব্লাউজ, হাতে লাল কাচের চুড়ি। চুল গুলো উড়ো খোপায় বাঁধা। তাতে প্যাচানো বেলী ফুলের মালা। মিষ্টি একটা সুবাশে ভরে গেল ঘর। অমিতের মনে হল সে যেন ঠাকুরমাকে দেখছে নতুন করে। ষাটের দশকের বাংগালী মেয়েদের কমন সাজ। তার পরেও মনে হল ঠাকুরমার একটা আদল যেন কোথায় পাওয়া যাচ্ছে।

-আমায় কেমন লাগছে বলতো ঠাকুরপো?"

-খুব চেনা লাগছে বৌদি, কিন্ত মিলাতে পারছিনা।

বৌদি হাসলেন, বললেন, 'আমি মিলিয়ে দিচ্ছি, চিবুকের বাঁ পাশের তিলটা নকল। সারাদিন এটা দেখনি। এখন দেখে তোমার ঠাকুরমার সাথে মিল পাচ্ছ।"

"এক দম ঠিক বলেছ। তুমি জানলে কেমন করে? তুমিতো ঠাম্মিকে চেন না।"

"শুভর কাছে তোমার ঠাকুরমা, তোমাদের বাড়ি, কোম্পানী এসবের অসংখ্য ছবি আর ভিডিও আছে। আমি সরাসরিও তাকে দেখেছি।"

"কিন্তু তুমি ঠাম্মির মত সাজতে গেলে কেন?"

"আজ তোমার মনটা ভাল নেই ঠাকুরপো। তোমার জন্য আমার এতটা খারাপ লাগছে যা ভাষায় বলে বুঝাতে পারবো না। সে জন্যই তোমাকে যেতে দেইনি। তোমার ঠাকুরমার ডামি সেজে যদি তোমার মনটা ভাল করতে পারি"

 

 

"ধন্যবাদ বউদি, বিদেশ বিভুইয়ে কে কার খবর রাখে। তোমার এ আন্তরিকতা আর ভালবাসার কথা আমি কোনদিন ভুলবো না।

"ভাল আর বাসতে পারলাম কই। তুমি তো আমার দিকে চোখ তুলে তাকাচ্ছই না্।"

"বউদি আমার মনটা খুব বিক্ষিপ্ত। তুমি জান। জান ঠাম্মি আমার জীবনে কি। তার আদলে কেউ যদি আমার সামনে এসে দাড়ায় তো আমি নিজেকে সামলাতে পারবো না, ভেংগে পড়বো।"

সরলা অমিতের আরও কাছ ঘেষে বসলো। তাজা বেলী ফুলের ঘ্রাণ অদ্ভুত এক মদিরা তৈরী করলো ঘরের মাঝে। কত হবে সরলার বয়স? ত্রিশ বত্রিশ এর বেশী না। মাঝারী উচ্চতা। ভরাট শরীর। ঠাকুরমা ছাড়া আর কোন নারী দেহ স্পর্শ করেনি অমিত। গত পনের বছর এই ফ্রি সেক্সএর দেশে সে একদম ব্রহ্মচারী হয়ে আছে। তার শরীরে সাড়া জাগতে শুরু করলো।

"আমিতো তাই চাই ঠাকুরপো, কত ঋণ তোমাদের কাছে। আমি গরীব ঘরের মেয়ে। টাকার অভাবে বিয়ে হচ্ছিল না। তখন ঠাকুর মা দাড়িয়ে থেকে আমাদের বিয়ে দিয়েছেন। আমার বাবাও চাকুরী করতেন তোমাদের কোম্পানীতে। ছোট চাকুরী ছিল তার।" সরলার হাত এবার অমিতের কাধের উপর। অমিত আস্তে করে হাতটা সরিয়ে দিল। এ ধরণের গাদ্দারী তার দ্বারা সম্ভব না্। শুভদার সাথে বেইমানী করার কোন ইচ্ছে তার নেই। কৃতজ্ঞতা বোধ আর ভাল বাসা এক নয়। মাত্র এক দিনের পরিচয়ে পরস্ত্রীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক? কেমন যেন বাধো বাধো ঠেকছে।

"ঠাকুর পো, আমাকে যদি তোমার নীচ প্রকৃতির মেয়ে মনে হয় তো ক্ষমা করে দাও। আসলে তোমার বুকের ভিতরে জমাট কষ্টটা আমিও শেয়ার করতে চাইছিলাম। এমন মায়া, এমন অনুভুতি সারা জীবনে আমার আর কারো জন্য হয়নি। আমার খেয়াল ছিল না তুমি কত অভিজাত মানুষ। অতি সাধারণ এক মেয়ের বুকের ভিতরে যতই তোলপাড় হোক সেটাতে তোমার কর্ণপাত করা সাজে না।"

অমিত দেখলো সরলার চোখের কোন চিক চিক করছে। সে খুব অপ্রস্তুত আর বিব্রত। তার মনটাও কেমন জানি খচখচ করতে লাগলো। একজন মানুষের এমন নিঃস্বার্থ নিবেদন উপেক্ষা করা যায় না। সে মনে মনে শুভর কাছে ক্ষমা চাইলো। তার পর হাত বাড়িয়ে সরলাকে টেনে নিল বুকের মাঝে।

অমিতের সাড়া পেয়ে পাগলের মত চেপে ধরলো সরলা তার বুকে। অমিত কারণটা বুঝতে পারলো না। সরলার স্বামী আছে, সন্তান আছে। শরীর মন ক্ষুধার্ত থাকার কথা নয়। অথচ তাকে তাই মনে হচেছ। অমিত তাকে খুব যত্ন আর আদর করে চুমু খেল। তারপর উঠে দাড়িয়ে সরলাকেও টেনে তুলল । সামনে দাড় করিয়ে খুটিয়ে খুটিয়ে দেখল তাকে।

উজ্জল শ্যামলা গায়ের রঙ। টানা টানা চোখ। মরালীর মত গ্রীবা। এত সুন্দর গ্রীবা সে অঞ্জলী ছাড়া আর কারো মাঝে দেখেনি। বুক দুটো ঠেলে বেরিয়ে আসতে চাইছে ব্লাউজ আর শাড়ি ভেদ করে। জর্জেট শাড়ি খাপে খাপে মিশে আছে শরীরের সাথে। ফলে প্রতিটি বাঁক শাড়ির উপর থেকেই প্রকটভাবে বুঝা যাচ্ছে। নিতম্ব দুটি গোল আর ভরাট। বংকিমীয় ভাষায় একেই বোধ হয় বলে পীনোন্নত পয়োধর।

"তুমি খুব সুন্দর বউদি।

"মুখের কথাটা কাজে প্রমাণ কর।"

অমিত আস্তে আস্তে শাড়ির আঁচলটা নিজের হাতে প্যাচাতে লাগলো। খাটো হয়ে আসতেই সরলাকে ঘুরতে হলো। ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে শাড়িটা খুলে নিল অমিত। ব্লাউজের হুকটা খুলে দিতেই অসম্ভব সুন্দর একজোড়া স্তন দেখতে পেল। অমিত অনুমান করলো ৩৬ বি। ব্রার বাধন ছিড়ে বেরিয়ে আসার জন্য লড়াই করছে স্তন গুলি। পেটিকোটের ফিতায় হাত দিল এবার। রশিটা ঢিলে করে টান দিতেই খুলে গেল। সরলার পরনে এখন শুধু গোলাপী প্যান্টি আর গোলাপী ব্রা। অমিত সরলাকে এ অবস্থায় আবারও চুমু খেল। তার পর ব্রার হুকটা খুলে দিল। ঠাম্মি শিখিয়েছিল। কৌশলটা ভুলেনি। বাধন মুক্ত হয়ে তাগড়া ঘোড়ার মত সামেনের দিকে লাফ দিল স্তন দুটি। খাড়া আর নিটোল। নিপল গুলি প্রায় কালচে। রঙটা হালকা হতে হতে নীচের দিকে নেমে গেছে। সরলা তখনও দাড়িয়ে। অমিত হাটু গেড়ে বসলো তার সামনে। দুই থাইয়ের দুই পাশ দিয়ে আংগুল ঢুকিয়ে প্যান্টিটা নামিয়ে দিল কোমড়ের নীচে। তারপর পা গলিয়ে বের করে আনলো। এবার শাড়ি, ব্লাউজ, পেটিকোট, ব্রা, আর প্যান্টি যত্ন করে তুলে রাখলো সেন্টার টেবিলে। তার পর খুট করে লাইট জ্বালিয়ে সরলা বউদির মুখোমুখি দাড়াল। একদম নিরাভরণ বাংগালী মেয়ে। হাতে কাচের চুড়ি গলায় চিকন একটা চেইন। আর কিছু নেই।

আলো জ্বলতেই লজ্জায় লাল হযে গেল সরলা। দুই হাতে চোখ ঢাকলো। তার পর ঝাপ দিল অমিতের বুকে।

 

banglablogboss.webnode.com
Back

Search site

যৌন শিক্ষা ও বাংলা চটি গল্প @ Copyright